ইসলামের স্বার্থে সর্বত্রে সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে: আল্লামা মাহমুদুল হাসান

ইসলামের বৃহৎ স্বার্থে শ’ত্রুপক্ষের সাথেও মুহব্বত ও ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, আমরা গত ৫ ডিসেম্বর সরকারের কাছে ৫টি দাবী তোলে ধরছি, খুব শালীনতার সাথে তাঁকে বুঝিয়েছি। অলরেডি একটা মেনে নিয়েছে, বাকী ৪টা মেনে নিবে বলে আমরা আশাবাদী। ইনশাআল্লাহ। তাঁদেরকে এভাবেই বুঝালে বুঝে এবং বুঝবেও।

তিনি অত্যন্ত দুঃখ ও পরিতাপের সাথে বলেন, ২০২০ সালে আমরা যেসব আলেম উলামাদের হারিয়েছি, তাঁরা ছিলেন আমাদের আকাবির, একেকজন মুকুটহীন বাদশাহ। তাঁদের শূণ্যস্থান কোনোকিছুর দ্বারাই পূরণ হবে না।

এভাবেই দ্বীনের ঝাণ্ডা উঁচু করে রাখা বীর সেনানীরা চলে যাবে, ইলম ও আমলদারদের উঠিয়ে নেয়া হবে, আর এভাবেই একসময় কিয়ামত সংগঠিত হয়ে যাবে।

তিনি পরিশেষে বিশেষত মাদ্রাসার তালাবা উলামাদের উদ্দেশ্যে নির্দেশনামূলক ইসলাহী কয়েকটি কথা বলেন, শব্দের পরিভাষা ঠিক করে কথা বলতে হবে। যে শব্দের সাথে ভিন্নধর্মীয় কোনো চরিত্র বা কাজ বুঝায়, এসব শব্দ পরিত্যাগ করতে হবে। উদাহরণ স্বরূপ তিনি বলেন, মাদ্রাসায় মুহতামীমকে মহাপরিচালক, অধ্যক্ষ, প্রিন্সিপাল এসব শব্দে ডাকা হলে বুঝা যেতে পারে যে সে হিন্দু,ইয়াহুদী, খৃষ্টান, কুলি, মালিও হতে পারে। কিন্তু মুহতামিম বললে বুঝা যাবে একজন সুন্নতে নববীর আদর্শবাদী, ওরাসাতুল আম্বিয়া এবং ওরাসাতুল আম্বিয়াদের অবিভাবক। কুরানে এসেছে ‘ওলা তাকুলু রা-ইনা’

বেকার অহেতুক ছবি ধারণ ও ভিডিও ফুটেজ তৈরী করা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং অধিকহারে সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহার করা পরিত্যাগ করতে হবে।