করোনায় বদ্ধ ঘরকে মসজিদ বানালো ছোট্ট বালক

বৈশ্বিক মহামারি করোনায় আবদ্ধ প্রায় পুরো বিশ্বের সব মানুষ। ঘরের এ আবদ্ধ সময়ে অবস্থান করা ৮ বছরের ব্রিটিশ বালক ইয়াহইয়া। ঘরের একটি স্থানকে সে মসজিদের আদলে তৈরি করেছেন। যা মুমিন মুসলমানের জন্য এক মহা অনুপ্রেরণা।

হাদিসের নির্দেশনা হলো- যেখানেই নামাজের সময় হয়, সেখানেই নামাজ আদায় করা। কারণ যে স্থানে নামাজের সময় হয় সে স্থানটিই মুমিন মুসলমানের জন্য মসজিদ। হাদিসে এর প্রমাণ রয়েছে। আর তাহলো-

হজরত আবু যার রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন আমি জিজ্ঞাসা করলাম- হে আল্লাহর রসুল! পৃথিবীতে কোন মসজিদটি সর্বপ্রথম নির্মিত হয়েছিল? তিনি বললেন, মাসজিদুল হারাম। আমি আবার জিজ্ঞাসা করলাম এরপর কোনটি (মসজিদ)।

তিনি বললেন, আল মাসজিদুল আক্বসা বা বায়তুল মাক্বদিস। আমি পুনরায় জিজ্ঞাসা করলাম, এ দুটি মাসজিদের নির্মাণকালের মধ্যে ব্যবধান কত? তিনি বললেন, চল্লিশ বছর। (তিনি আরো বললেন) যে স্থানেই নামাজের সময় হবে, তুমি সেখানেই নামাজ আদায় করে নেবে।’ (মুসলিম)

বিজ্ঞাপন

অন্য এক হাদিসে এসেছে- ‘যেখানেই নামাজের সময় হবে, তুমি সেখানেই নামাজ আদায় করে নেবে। কারণ সেটিও মসজিদ।’

(মুসলিম)
মহামারি করোনার কারণে বিশ্বের অধিকাংশ মসজিদে নামাজ ও বড় জামাআত স্থগিত রয়েছে। চাইলেই যে কেউ মসজিদে এসে নামাজ আদায় করতে পারছে না।

রয়েছে রাষ্ট্রীয় বিধি-নিষেধ। এ সময় অধিকাংশ মানুষ ঘরের চার দেয়ালের মধ্যে আবদ্ধ। বদ্ধ বাসায় আজান শুনে সেখানেই নামাজ আদায় করবে মুমিন। কারণ হাদিসের আলোকে বাসাও মুমিন মুসলমানের একটি মসজিদ।

বিজ্ঞাপন

ব্রিটিশ নাগরিক ইয়াহইয়া মুরাদ হোসাইন। করোনা ভাইরাসের কারণে ঘরে আবদ্ধ। সে এ সময়টিতে নামাজ পড়ার জন্য ইতিমধ্যে নিজ ঘরের রুমকেই মসজিদে পরিণত করেছেন। মসজিদের আদলে অলংকৃত করেছেন পুরো রুমটিকে। যা যে কাউকে বাসায় ইবাদতের জন্য আলাদা স্থানে ডিজাইন করতে উদ্বুদ্ধ করবে।

মসজিদ নির্মাণে মুরাদ প্রথমেই মোটা কাগজের উপর পেন্সিল দিয়ে স্ক্যাচ করেন। কাগজের ওপর করা স্ক্যাচ সে ডিজাইনে নিজ ঘরকে মসজিদে রূপ দিয়েছেন ইয়াহইয়া মুরাদ হোসানই। যা দেখতে পুরোপুরি মসজিদে মতোই।

বৈশ্বিক মহামারি করোনায় আবদ্ধ প্রায় পুরো বিশ্বের সব মানুষ। ঘরের এ আবদ্ধ সময়ে অবস্থান করা ৮ বছরের ব্রিটিশ বালক ইয়াহইয়া। ঘরের একটি স্থানকে সে মসজিদের আদলে তৈরি করেছেন। যা মুমিন মুসলমানের জন্য এক মহা অনুপ্রেরণা।

হাদিসের নির্দেশনা হলো- যেখানেই নামাজের সময় হয়, সেখানেই নামাজ আদায় করা। কারণ যে স্থানে নামাজের সময় হয় সে স্থানটিই মুমিন মুসলমানের জন্য মসজিদ। হাদিসে এর প্রমাণ রয়েছে। আর তাহলো-

হজরত আবু যার রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন আমি জিজ্ঞাসা করলাম- হে আল্লাহর রসুল! পৃথিবীতে কোন মসজিদটি সর্বপ্রথম নির্মিত হয়েছিল? তিনি বললেন, মাসজিদুল হারাম। আমি আবার জিজ্ঞাসা করলাম এরপর কোনটি (মসজিদ)।

তিনি বললেন, আল মাসজিদুল আক্বসা বা বায়তুল মাক্বদিস। আমি পুনরায় জিজ্ঞাসা করলাম, এ দুটি মাসজিদের নির্মাণকালের মধ্যে ব্যবধান কত? তিনি বললেন, চল্লিশ বছর। (তিনি আরো বললেন) যে স্থানেই নামাজের সময় হবে, তুমি সেখানেই নামাজ আদায় করে নেবে।’ (মুসলিম)

বিজ্ঞাপন

অন্য এক হাদিসে এসেছে- ‘যেখানেই নামাজের সময় হবে, তুমি সেখানেই নামাজ আদায় করে নেবে। কারণ সেটিও মসজিদ।’ (মুসলিম)

মহামারি করোনার কারণে বিশ্বের অধিকাংশ মসজিদে নামাজ ও বড় জামাআত স্থগিত রয়েছে। চাইলেই যে কেউ মসজিদে এসে নামাজ আদায় করতে পারছে না। রয়েছে রাষ্ট্রীয় বিধি-নিষেধ। এ সময় অধিকাংশ মানুষ ঘরের চার দেয়ালের মধ্যে আবদ্ধ। বদ্ধ বাসায় আজান শুনে সেখানেই নামাজ আদায় করবে মুমিন। কারণ হাদিসের আলোকে বাসাও মুমিন মুসলমানের একটি মসজিদ।

বিজ্ঞাপন

ব্রিটিশ নাগরিক ইয়াহইয়া মুরাদ হোসাইন। করোনা ভাইরাসের কারণে ঘরে আবদ্ধ। সে এ সময়টিতে নামাজ পড়ার জন্য ইতিমধ্যে নিজ ঘরের রুমকেই মসজিদে পরিণত করেছেন। মসজিদের আদলে অলংকৃত করেছেন পুরো রুমটিকে। যা যে কাউকে বাসায় ইবাদতের জন্য আলাদা স্থানে ডিজাইন করতে উদ্বুদ্ধ করবে।

মসজিদ নির্মাণে মুরাদ প্রথমেই মোটা কাগজের উপর পেন্সিল দিয়ে স্ক্যাচ করেন। কাগজের ওপর করা স্ক্যাচ সে ডিজাইনে নিজ ঘরকে মসজিদে রূপ দিয়েছেন ইয়াহইয়া মুরাদ হোসানই। যা দেখতে পুরোপুরি মসজিদে মতোই।