সিরিয়ার হাজারো এতিম শিশু পথেঘাটে ঘুমায়

সিরিয়ার নির্মম গৃ’হযু’দ্ধে কেবল বড়রাই ক্ষ’তিগ্র’স্ত হয়েছে তা নয় বরং ভয়াবহ র’ক্তা’ক্ত এই যু’দ্ধ সিরিয়ার শিশুদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে তাদের শৈশব। জাতিসংঘের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে এই কথাই বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার(১৬ জানুয়ারি) জাতিসংঘের সিরিয়া বিষয়ক তদন্ত কমিশন জেনেভায় এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে বলা হয়, সিরিয়ার শিশুরা স’হিংস’তা এবং হয়রানির মধ্যে অরক্ষিত অবস্থায় আছে। শিশুদের যেসব অধিকার আছে তা থেকে সিরিয়ার শিশুরা বঞ্চিত।

‘তারা আমার বাচ্চাদের স্বপ্নগুলো মুছে ফেলেছে’ শিরোনামে ২৫ পৃষ্ঠার ওই প্রতিবেদনে সিরিয়ার শিশুদের অমানবিক অবস্থার কথা বর্ণনা করা হয়েছে। তদন্ত কমিশনের চেয়ারম্যান পাওলো সার্জিও পিনহেইরো এই পরিস্থিতিকে অপমান এবং ক’লংকজ’নক বলে উল্লেখ করেন।

জাতিসংঘের সিরিয়া বিষয়ক তদন্ত কমিশনের তিন জন সদস্য সং’ঘাতপূর্ণ এলাকায় শিশু অধিকার যে মা’রাত্মক’ভাবে লং’ঘিত হচ্ছে তা সুন্দরভাবে তুলে ধরেন তাদের প্রতিবেদনে। প্রসঙ্গত, সিরিয়ার গৃ’হযু’দ্ধের কারণে ৫০ লাখ শিশু বা’স্তুচ্যুত হয়েছে।

সিরিয়ার সরকার এবং এই সংঘা’তে জড়িয়ে পড়া সবাইর শিশুদের অধিকার রক্ষায় দায়িত্বশীল আ’চরণ করতে হবে। বিশেষ করে সিরিয়ার সরকারকে নিজ দেশের ভবিষ্যত প্র’জন্মকে রক্ষায় সবচেয়ে বেশী উদ্যোগী হতে হবে উল্লেখ করেন পিনহেইরো।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে সিরিয়ার গৃ’হযু’দ্ধ শুরু হয়। সরকারবিরোধী বি’ক্ষোভ প্রতিরোধে প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদ ব্যাপক শক্তি প্রয়োগ করায় এই বিক্ষো’ভ থেকে গৃ’হযু’দ্ধের দিকে এগিয়ে যায় দেশটি। এই যু’দ্ধ এখনো অব্যাহত রয়েছে। নির্ম’ম এই যু’দ্ধে নারী,পুরুষ, শিশুসহ লাখ লাখ মানুষ প্রা’ণ হারিয়েছে, আ’হত এবং বাস্তুচ্যু’ত হয়েছে।