৬ মাসে ৩ বার কা’রাগার ও গৃ’হব’ন্দি ফিলিস্তিনি এক কিশোর

গেল ছয় মাসের মধ্যে অন্তত তিনবার কা’রাগার ও গৃ’হবন্দি হতে হয়েছে ১৪ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনি কিশোর। সর্বশেষ তাকে দুই মাসের কা’রাদণ্ড দিয়েছে ইহুদিবাদী ইসরায়েলের একটি আদালত।

কিশোরটির বি’রুদ্ধে ইসরায়েলি পুলিশের দিকে পাথর নিক্ষেপ করার অ’ভিযোগ আনা হয়েছে বলে তার পরিবারের বরাতে জানিয়েছে মিডল ইস্ট আই।

ইশাওইয়া অঞ্চলে বসবাসকারী আবদুল্লাহ নামের ওই কিশোরটির মা বলেন, গেল ছয় মাসের মধ্যে তার ছেলেকে অন্তত তিনবার কা’রাগার ও গৃ’হব’ন্দি হতে হয়েছে।

মিডল ইস্ট আই-এর খবরে বলা হয়েছে, এ এলাকায় প্রায়ই ইসরায়েলি সেনাবাহিনী ও পুলিশ অভিযান চালায়। এখানে নিয়মিতই ফিলিস্তিনিদের বাড়িঘর মাটিতে মিশিয়ে দেয় ইসরায়েলি হানাদারেরা।

ইসরায়েলি পত্রিকা হারিৎস জানায়, স্থানীয় ফিলিস্তিনিদের হয়রানি ও উত্যক্ত করতে এ অঞ্চলে তৎপর থাকে ইসরায়েলি পুলিশ।

এর আগে গত নভেম্বরে একবার আটক হয়েছে আবদুল্লাহ। তখন বায়তুল হাম কাছে আবু গুনেম পুলিশ স্টেশনে তাকে চারদিন অবস্থান করতে হয়েছে। ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা শিনবেত তার বি’রু’দ্ধে তদ’ন্ত করেছে বলে জানা গেছে।

সূত্রমতে জানা গেছে, এরপর এক হাজার সেকেলের বিনিময়ে তাকে জামিন দেওয়া হয়। শর্ত দেওয়া হয়, অন্তত দশ দিন তাকে গৃ’হব’ন্দি থাকতে হবে। পরে আরও পাঁচ মাস তার গৃ’হব’ন্দিত্ব বাড়ানো হয়।

মার্চে সেই মেয়াদ শেষ হলে তদ’ন্তের কথা বলে মসকোভিয়া বন্দিশিবিরে তাকে পাঁচদিন আ’টক করে রাখে।

আবদুল্লাহর মা মিডল ইস্ট আইকে বলেন, ইসরায়েলি দখলদারিত্বে আমাদের কষ্টের শেষ নেই।

ইসরায়েলি বাহিনী নিয়মিত অভিযান চালায় এবং রাবার বুলেট, স্টান গ্রেনেড নিক্ষেপ করে। ফিলিস্তিনি নারী, পুরুষ ও শিশুদের ক্ষুব্ধ করে তুলে,

যাতে তারা প্রতিবাদ জানায়। পুলিশের গাড়িতে পাথর নিক্ষেপ করে কাচ ভাঙার অ’ভিযোগ আনা হয়েছে আবদুল্লাহর বি’রু’দ্ধে।