অনতিবিলম্বে কাদিয়ানীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুসলিম ঘোষণা করতে হবে : আল্লামা নুরুল ইসলাম

আন্তর্জাতিক মজলিসে তাহাফ্ফু‌জে খতমে নবুওয়াত বাংলাদেশ-এর সভাপতি আল্লামা নুরুল ইসলাম জেহাদী বলেছেন, কাদিয়ানী সম্প্রদায় নিজেদের মুসলিম দাবি করে সরলমনা মুসলমানদের ধোঁকা দিয়ে ঈমান হরণ করছে।

তাদের ঈমান বি’ধ্বং’সী কাজ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এজন্য সরকারের কাছে আমরা জোর দাবি জানাচ্ছি, এই সম্প্রদায়কে অনতিবিলম্বে রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুসলিম ঘোষণা করতে হবে।

আজ (১৮ মার্চ) রাজধানীর খিলগাঁওস্থ মাখজানুল উলুম মাদরাসায় আন্তর্জাতিক মজলিসে তাহাফ্ফু‌জে খতমে নবুওয়তের এক বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

আল্লামা জেহাদী বলেন, দেশের সকল মুসলমানদের ঈমানী দায়িত্ব হচ্ছে কাদিয়ানীদের সাথে সম্পৃক্ত সকল প্রতিষ্ঠানকে সম্পূ’র্ণরূ’পে বয়কট করা।

তাদের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান দেশের জনগণের কাছ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যবসা করে, সেই টাকা দিয়ে মুসলিমদের ঈমানহারা করছে।

তাই প্রতিটি মুসলিমের উচিৎ কাদিয়ানীদের সকল প্রকার পণ্য ও তাদের প্রতিষ্ঠানগুলোকে বর্জন করা।

এছাড়াও আড়ং-এর দাড়ি নিয়ে আপত্তি বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়ে তিনি বলেন, ৯২ ভাগ মুসলমানদের দেশে ব্যবসা করা একটি প্রতিষ্ঠান কী করে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাত দাড়ি নিয়ে আপত্তি তুলতে পারে!

যদিও তারা বাধ্য হয়ে ক্ষমা চেয়েছে। তারপরেও আমরা বলবো, এমন ঘটনা যেনো দ্বিতীয়বার কোনো প্রতিষ্ঠান ঘটাবার সাহস না করে, সে জন্য সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নাতের দু’ষমন কোনো নাস্তি’ক-মুরতাদপন্থী প্রতিষ্ঠানকে এই দেশে ব্যবসা করার সুযোগ দেওয়া হবে না, ইন শা আল্লাহ।

বৈঠকে গত ১১ মার্চ আন্তর্জাতিক তাহাফ্ফু‌জে খতমে নবুওয়ত ঢাকা খিলগাঁও ২ নং জোন আয়োজিত অনুষ্ঠিত হওয়া খতমে নবুওয়ত সম্মেলন সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ায় জোনের নেত্রীবৃন্দ ও সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান কেন্দ্রীয় সভাপতি আল্লামা নুরুল ইসলাম জেহাদী।

এছাড়াও এতে ঢাকায় বৃহৎ পরিসরে উলামা-মাশায়েখ ও সুধী সমাবেশের আয়োজন করার লক্ষ্যে বিস্তারিত আলাপ আলোচনা হয়।

আল্লামা নুরুল ইসলাম জেহাদীর সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী, মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সুবহানী, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা কেফায়েতুল্লাহ আজহারী

মাওলানা এনামুল হক মুসা, শীব্বির আহমদ কাসেমী, মাওলানা মুহাম্মাদ ফয়সাল ও মাওলানা ইলিয়াস হামিদী, মাওলানা ইউনুস ডালী, মাওলানা আশেকুল্লাহ, মাওলানা সুলতান, মাওলানা মুমিনুল ইসলাম, মাওলানা গোলান মাওলা প্রমুখ।