ভাষণ নয়, নীরবে মানুষের জন্য কাজ করছেন শাহরুখ খান, কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের জন্য অফিস ছাড়লেন বলিউড বাদশা

বলিউডের তিনি হলেন ‘কিং খান’। শুধু অভিনয়ে দক্ষতার জন্যই নয়। তাঁর কাজও বাদশারই মতো। করোনা সংক্রমণে যারা আক্রান্ত, তাদের কোয়ারিনন্টিনের জন্য মুম্বইয়ের অফিস ছেড়ে দিলেন শাহরুখ খান।

এবার থেকে রেড চিলি এন্টারটেনমেন্ট নয়। অভিনেতা শাহরুখ খান ও স্ত্রী গৌরী খানের একটি পুরনো ৪-তলা অফিসকে বদলে ফেলা হবে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে। এমনই ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন সেলেব দম্পতি। শনিবার বূহন্মুম্বই পুরনিগম (বিএমসি) ট্যুইট করে খবরটি জানিয়েছে। সেই সঙ্গে মহৎ এই উদ্যোগের জন্য বলিউডের কিং খানকে ধন্যবাদও জানানো হয়েছে। বিএমসি-র তরফে ট্যুইটারে লেখা হয়েছে, “শিশু, মহিলা এবং বয়স্কদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার ব্যবস্থা করলেন শাহরুখ ও গৌরী খান। দেশের এমন কঠিন পরিস্থিতিতে ৪-তলা অফিসকে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার হিসাবে ব্যবহার করতে দেওয়ায় আমরা কৃতজ্ঞ। সঠিক সময়ে প্রশংসনীয় সিদ্ধান্ত।”

শুধু কী তাই! করোনার জেরে কাজ হারিয়েছেন মুম্বইয়ের প্রায় সাড়ে ৫ হাজার নিম্নবিত্ত পরিবার। সেই সব শ্রমিক ও তাদের পরিবারের খাওয়ার খরচের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন শাহরুখ।টানা ১ মাস এই ব্যয় বহন করবেন তিনি। ‘এক সাথ’ নামের একটি সংস্থার সঙ্গে হাত মিলিয়ে মীর ফাউন্ডেশন করবে এই কাজ। মুম্বই পুলিশের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে তাঁর সংস্থা রোজ ৩ লক্ষ খাবারের প্যাকেট বিলি করবে ভবঘুরে আর ভিক্ষুকদের মধ্যে। এছাড়া দিল্লির ২৫০০ দিনমজুর পরিবারগুলিতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ১ মাস বিনামূল্যে রেশন বিলি করার দায়িত্ব নিয়েছেন শাহরুখ৷

এবার রেড চিলি এন্টারটেনমেন্ট-এর অফিসও দিয়ে দিলেন তিনি। করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় ত্রাণ তহবিলে নানা ভাবে সাহায্য করেছে বলিউড তারকারা। এই তালিকায় প্রথমেই আছেন বলিউডের ভাইজান সলমন খান। রয়েছেন অজয় দেবগণ, অক্ষয় কুমার, বরুণ ধাওয়ানের মতো স্টারও। এবার সেই তালিকায় নাম যুক্ত হল শাহরুখ খানেরও।

এর আগে করোনা মোকাবিলায় বাংলা, দিল্লি, মহারাষ্ট্র সহ একাধিক রাজ্যর ত্রাণ তহবিলে বিপুল অর্থ সাহায্য করেন বলিউড বাদশা। কোন কোন এলাকার দুস্থদের কাছে খাবার প্যাকেট যাবে তাও জানিয়েছেন শাহরুখ। তাঁর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অরবিন্দ কেজরিওয়াল ও উদ্ধব ঠাকরে।

শাহরুখকে ধন্যবাদ জানিয়ে ট্যুইটও করেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।তাঁর উত্তরে কিং খান বলেন, ‘ধন্যবাদ দেবেন না স্যার। আপনি আমাকে হুকুম করুণ কীভাবে অর্থ সাহায্য করতে পারি।’ (সৌজন্য- পুবের কলম

এক মাসের মধ্যেই আসছে করোনার ভ্যাকসিন

করোনার প্রতিষেধক তৈরিতে বিশ্বজুড়ে চলছে জোর প্রচেষ্টা। বিশ্বের সব খ্যাতনামা গবেষকরা চেষ্টা চালাচ্ছেন করোনার ভ্যাকসিন তৈরিতে। এবার করোনার ফিংগার ট্রিপ ভ্যাকসিন নিয়ে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র। নিডলের মাধ্যমে হাতে এই ভ্যাকসিনটি দেওয়া হবে।

এরই মধ্যে ভ্যাকসিনটি শরীরে দেওয়ার জন্য ৪০০ টি নিডল প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ভ্যাকসিনটি রাখতে রেফ্রিজারেটরের কোন প্রয়োজন নেই। ঘরের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় থাকে ফিংগার ট্রিপ ভ্যাকসিন। গবেষকরা বলছেন করোনার চিকিৎসায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এই ফিংগার ট্রিপ ভ্যাকসিন। এছাড়া বেশ কিছু বিজ্ঞানী এই ভ্যাকসিনকে স্বীকৃতি দিয়েছেন।

এর আগে ইদুরের শরীরে সফল ভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে ভ্যাকসিনটি। পিটসবার্গ স্কুল অফ মেডিসিন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা বলেছেন আগে সার্স এবং মার্সের সময়ে ওষুধ তৈরিতে কাজ করেছে তারা সে হিসেবে তাদের ভালো অভিজ্ঞতা আছে।

ইউনিভার্সিটি অফ পিটার্সবার্গ মেডিক্যাল সেন্টারের অধ্যাপক লুইস ফেলো বলছেন আমরা শরীরের ত্বকে ভ্যাকসিনটি দেওয়ার জন্য এই স্ক্র্যাচ পদ্ধতিটি তৈরি করেছি। সূত্রঃ এমটিনিউজ২৪

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.