করোনা থেকে বাঁচতে প্রতিটি ঘরকে মসজিদ বানান : ইরফান পাঠান

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের নানা দেশের মসজিদগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ভারতজুড়ে লকডাউন চলছে। এমন অবস্থায় দেশটিতে বসবাসরত মুসুল্লিদের মসজিদে না গিয়ে ঘরেই নামাজ আদায় করার আহ্বান জানানো হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে।

করোনার প্রকোপে বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে নিয়েছেন ভারত জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার ইরফান পাঠান।

ক্যারিয়ারে ২৯ টেস্টে ১০০ উইকেট, ১২০ ওয়ানডেতে ১৭৩ উইকেট ও ২৪ টি-টোয়েন্টি খেলে ২৮ উইকেট রয়েছে এই পেস অলরাউন্ডারের। তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ২ হাজার ৮২১ রানও রয়েছে তার নামের পাশে।

নিজের ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন ইরফান। সবাইকে নিজ নিজ বাসস্থানে নামাজ আদায়ের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

সাবেক এই তারকা অলরাউন্ডার বলেন, ‘মসজিদে যেতে মানা করা হয়নি এটা না ভেবে, ভাবুন প্রতিটা ঘরকে মসজিদ বানাতে বলা হয়েছে। আমাদের মতো আমাদের ঘরও গুনাহগার হয়েছে। আসুন নিজেদের ঘর পরিষ্কার রেখে ঘরেই নামাজ আদায় করি।’

ভারতে এই পর্যন্ত চার হাজার সাড়ে আটশোর বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ১৩৮ জন। হানিমুন নয়, করোনার বিরুদ্ধে লড়ছেন মুসলিম চিকিৎসক দম্পত। বিয়ের জন্য পছন্দের পোশাক বাছাই করা শেষ, হানিমুনের জন্য বুকিং দেওয়াও হয়েছে। মহা ধুমধাম করে বিয়ে হওয়ার কথা মার্চের শেষ।

কিন্তু প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সব উলট পালট করে দিল। কথা হচ্ছিল আমেরিকার দুই মুসলিম চিকিৎসক কাশিফ চৌধুরী ও নাইলা শেরিনের। করোনা রোগীদের সেবা দেওয়ার জন্য তারা ধুমধাম করে বিয়ে ও হানিমুনের সমস্ত পরিকল্পনা বাতিল করে দেয়।

দুই সপ্তাহ আগে তারা নিউ জার্সির এক মসজিদে বিয়ে করে। এরপর নাইলা শেরিনের বাবার বাড়িতে ছোট পরিসরে উদযাপন করে। কিন্তু এর ১২ ঘণ্টা পরেই শেরিন তার স্বামীকে বিমানবন্দরে বিদায় জানান।

কাশিফ চৌধুরী বলেন, আমরা একে অপরকে বিদাই জানাই, আমাদের চোখ বেয়ে পানি বের হয়ে আসে এবং আমরা বিষণ্ণ ছিলাম। আমি তাকে সেসময় তাকে একটি গোলাপ দেই।

এরপর সোমবারই কাজে যোগদান করে শেরিন। নিউ ইয়র্ক যেখানে করোনার ভয়াবহ প্রকোপ চলছে সেখানে রোগীদের সেবা দিচ্ছেন তিনি।শেরিন বলেন, আমরা সবাই জানি নিউ ইয়র্কের অবস্থা ভাল না এবং এও জানি ভয়াবহ অবস্থা এখনো আসেনি।

অন্যদিকে কাশিফ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রের আইওয়া অঙ্গরাজ্যের সিডার র‌্যাপিডস শহরের মারসি মেডিক্যাল হাসপাতালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রোগী দেখছেন। তবে মন পড়ে আছে নিউ ইয়র্কে। সদ্য বিবাহিত স্ত্রীর কাছে।

তিনি বলেন, তার জন্য আমার অনেক দুশ্চিন্তা হয়, কিন্তু সত্যি তার জন্য আমি গর্বিত। করোনার প্রকোপে ভয়াবহ অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রের। ইতিমধ্যে দেশটিতে ২ লাখ ৭৭ হাজারের বেশি জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছে ৭ হাজার ৩৯২ জন।

এরমধ্যে নিউ ইয়র্কের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। প্রতিক্ষণে দেশটিতে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। রয়টার্স

মক্কা মদিনা ও মসজিদের দরজা বন্ধ হলেও আল্লাহর দরজা কখনও বন্ধ হয় না!

মক্কা মদিনা বন্ধ। মসজিদের দরজা বন্ধ। কিন্তু আল্লাহর দরজা কখনও বন্ধ হয় না।

আল্লাহ বলেন, ‘পূর্ব ও পশ্চিম আল্লাহরই। অতএব, তোমরা যেদিকেই মুখ ফেরাও, সেদিকেই আল্লাহ বিরাজমান। নিশ্চয় আল্লাহ সর্বব্যাপী, সর্বজ্ঞ।’ [ সুরা বাকারা :১১৫]

আল্লাহ বলেন, ‘এখন নির্বোধেরা বলবে, কিসে মুসলমানদের ফিরিয়ে দিল তাদের ঐ কেবলা থেকে, যার উপর তারা ছিল? আপনি বলুনঃ পূর্ব ও পশ্চিম আল্লাহরই। তিনি যাকে ইচ্ছা সরল পথে চালান।’ [ সুরা বাকারা :১৪২ ]

ইতিহাসে অসংখ্যবার কা’বা ঘর বন্ধ হয়েছে। আর এতে এটাই প্রমান করে যে, আমরা কা’বা ঘরের ইবাদত করি না। আমরা ইবাদত করি কা’বার মালিকের।

নামাজ পড়ছে কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের দুই সন্তান

নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ ও অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওনের দুই শিশুসন্তানের নামাজ পড়ার ছবি ফেসবুকে ভাই’রাল হয়েছে। ছবি দুটি নিজের ফেসবুক হ্যান্ডেলে পোস্ট করেছিলেন নিশাদ ও নিনিতের মা মেহের আফরোজ শাওন। রবিবার সন্ধ্যায় শাওনের পোস্ট করা ছবির ক্যাপশনে তিনি লেখেন– ‘বিরাজ সত্য সুন্দর…’।

শাওনের পোস্ট করা ছবিওতে দেখা যায়, ধানমণ্ডির দখিন হাওয়া ফ্ল্যাটে নিশাদ হুমায়ূন ও নিনিত হুমায়ূনের মাঝখানে শিশুকে নামাজ পড়ছে। হুমায়ূন আহমেদের শিশুসন্তানদের নামাজ পড়ার দৃশ্য দেখে ফেসবুকে সবাই প্রশংসা করেছেন। রাজিয়া রহমান জলি নামের একজন লিখেছেন, ‘ওদের দোয়ায় যেন শান্তি ফিরে আসে জীবনে।’

লুৎফর রহমান নামের একজন লিখেছেন, ‘খুব মনোযোগ দিয়ে মহান সৃষ্টিকর্তার নিকট নিজেকে সোপর্দ করেছেন বাপজানরা। এটিই হচ্ছে একজন সফল বাবা-মায়ের শ্রেষ্ঠ প্রাপ্তি। আল্লাহ এই নিষ্পাপ বাচ্চাদের দিকে তাকিয়ে আমাদের ক্ষমা করো। ফারহাত নামের একজন লিখেছেন, ‘আপু বাচ্চাগুলোকে রাসুল (সা.) এর আদর্শে আদর্শিত করবেন। এই দোয়া করি।’

প্রসঙ্গত হুমায়ূন-শাওন দম্পতির প্রথম পুত্রসন্তান নিশাদ হুমায়ূন জন্মগ্রহণ করে ২০০৭ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি। আর ২০১০ সালের ৬ সেপ্টেম্বর নিনিত হুমায়ূন পৃথিবীর আলো দেখে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.