কোরআন তেলাওয়াত করে নাস্তিক থেকে সপরিবারে ইসলাম গ্রহণ করেন ড. গারোদি!

ড. রোজার গারোদির নাম মুসলিম বিশ্বের সর্বত্র কমবেশি পরিচিত। তিনি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ফরাসি দার্শনিক। তিনি ছিলেন সমাজতন্ত্র ও পুঁজিবাদের একনিষ্ঠ ভক্ত ও নাস্তিক। কমিউনিস্ট পার্টির মহাসচিব। বিচক্ষণ এক দার্শনিক। পরে তিনি ইসলামের ছায়াতলে আশ্রয় গ্রহণ করেন। তাঁকে নিয়ে লিখেছেন ড. ইকবাল কবীর মোহন

ফ্রান্সের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে ড. রোজার গারোদির সুনাম ও সুখ্যাতি সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছিল। সমাজতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গির পাশাপাশি তিনি পুঁজিবাদী মানসিকতা বহুদিন বাদ দিতে পারেননি। ইসলামবিদ্বেষী পথচলাকে সে সময় কৃতিত্বের পরিচায়ক বলে মনে করা হতো।

এ ধারণা বেশি দিন তাঁর মাঝে আসন গেড়ে বসে থাকতে পারেনি। ড. রোজার গারোদি একসময় আঁচ করতে পারেন যে পুঁজিবাদী গোষ্ঠীর একটি জঘন্য দিক হচ্ছে, আধুনিক বিশ্বের বিনির্মাণে ইসলামী সভ্যতার অবদানকে হেয় করা। এই বিষয়টিকে কূটনীতির মূল মানদণ্ড হিসেবে গ্রহণ করে পুঁজিবাদ।

তা ছাড়া জাতীয়তাবাদী বিভেদ সৃষ্টির মাধ্যম মুসলিম জাতি-গোষ্ঠীর পশ্চাৎপদতার পথ জোরদার করার কাজটি পুঁজিবাদের অন্যতম লক্ষ্য। এটা এ কারণে যে মুসলিম বিশ্বের ঐক্য ও সংহতি যাতে কখনো স্থাপিত হতে না পারে। আর এই কৌশলই পুঁজিবাদী শ্রেণির স্বার্থরক্ষার বা প্রতিষ্ঠার একমাত্র হাতিয়ার।

এই দৃষ্টিভঙ্গির কারণে একসময় ড. রোজার সমাজতন্ত্র ও পুঁজিবাদের ওপর বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়েন। এই সময় তিনি বিভিন্ন ধর্মের পুস্তকাদি পড়তে শুরু করেন। একই সঙ্গে তুলনামূলক গবেষণা ও পর্যালোচনাকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গ্রহণ করেন। এর ফলে এমন একটি সত্য তিনি উপলব্ধি করতে সক্ষম হন যে গোটা বিশ্বের জ্ঞান ও বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে যাঁদের দান ও ভূমিকা সবচেয়ে বেশি তাঁরা সবাই ছিলেন মুসলমান।

মানুষের উন্নতি ও অগ্রগতির এমন কোনো দিক নেই, যেখানে মুসলমানদের পদচারণ ঘটেনি। মুসলমানরা সব ক্ষেত্রে ছিলেন অগ্রণী ভূমিকায় অবতীর্ণ। তিনি এটাও লক্ষ করেন যে এ সত্যটিকে চাপা দেওয়ার জন্যই সা’ম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলো নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এই সত্য ও বাস্তবতায় ড. গারোদি খুবই ব্যথিত ও মর্মাহত হন।

ফলে তিনি ইসলামকে জানার ও বোঝার জন্য উদগ্রীব হয়ে ওঠেন। তিনি এটাও উপলব্ধি করেন যে সা’ম্রাজ্যবাদীরা ১৮৬১ সাল থেকে গোটা বিশ্বকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার লক্ষ্যে নানা রকম জ’ঘন্য ফন্দি-ফিকির এঁটে যাচ্ছে। যার ফলে দুনিয়ার মানুষ শো’ষণ, ব’ঞ্চনা ও নি’র্যাতনের শিকার হচ্ছে।

তবে এ অন্যায়বোধ সা’ম্রাজ্যবাদীদের লোভ ও হিং’সার পথ থেকে সামান্যতম দূরেও সরাতে পারেনি। এরপর ড. গারোদি কোরআন শরিফ পাঠে গভীর মনোযোগী হন। এ পর্যায়ে তিনি এমন এক আলোর সন্ধান পান, যা তাঁকে ইসলাম গ্রহণে আগ্রহী করে তোলে।

ফলে ১৯৮২ সালে ২৭ বছর বয়সে সপরিবারে তিনি ইসলাম গ্রহণ করেন। ইসলাম গ্রহণ করার পর গারোদি ইসলামের প্রচার ও প্রসারের কাজে নিজেকে উৎসর্গ করেন। সত্যের মহাজ্ঞান রশ্মির ঝলক তাঁকে পথ চলতে সহায়তা করে। তিনি ইসলামের মর্মবাণী বিশ্বের সর্বত্র ছড়িয়ে দিতে সচেষ্ট হন।

জাগতিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি আত্মিক শক্তির বিকাশকে খুবই গুরুত্বসহকারে উপলব্ধি করার জন্য তিনি জ্ঞানীসমাজকে একান্তভাবে আহ্বান জানান। ড. রোজার গারোদির অকাট্য যুক্তি ও ক্ষুরধার লেখনীর প্রভাব সা’ম্রাজ্যবাদী চক্রকে ভাবিয়ে তোলে। তাই তারা নির্মম প্রতিশোধ গ্রহণের পথ বেছে নিতেও কুণ্ঠাবোধ করেনি।

এর পরও ইসলামের এই অতন্দ্র সৈনিক তাঁর অভীষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য থেকে মোটেই পিছ-পা হননি। বরং অকুতোভয়ে তিনি এগিয়ে যান সম্মুখ অভিমুখে। তাঁর অবিস্মরণীয় দৃঢ়তা ও আন্তরিকতার ফলে পা’শ্চাত্যজগতে ইসলামের বিজয় কেতন আরো উচ্চতায় উন্নীত হতে সক্ষম হয়েছে। ২০১২ সালে এই মনীষী ই’ন্তেকাল করেন।

আল্লাহই রক্ষা করতে পারেন, সুস্থতা দানের মালিক একমাত্র আল্লাহ

মুফতি মুহাম্মাদ ইসমাঈল : রোগে আক্রান্ত হওয়া, অভাবে পতিত হওয়া, ঋণগ্রস্ত হওয়া ও বেকার হওয়াসহ হাজারো পেরেশানিতে মানুষ ভোগে। এ পেরেশানি দুই ধরনের—

এক. পেরেশানি আল্লাহর পক্ষ থেকে শাস্তিস্বরূপ এসে থাকে। পাপ-নাফরমানির প্রকৃত শাস্তি তো বান্দা পরকালেই পাবে। কিন্তু মানুষ যখন সীমাহীন অবাধ্যতায় লিপ্ত হয়, তখন আল্লাহ ইহকালেও আজাবের কিছু নমুনা প্রকাশ করে দেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘(পরকালের) বড় শাস্তির পূর্বে আমি অবশ্যই তাদের (ইহকালে) সামান্য শাস্তি আস্বাদন করাব, যেন তারা (মন্দ কাজ থেকে) প্রত্যাবর্তন করে।’ (সুরা : সাজদা, আয়াত : ২১)

দুই. পেরেশানির মাধ্যমে বান্দার মর্যাদা উন্নীত হতে থাকে। এর বিনিময়ে তাকে সওয়াব দেওয়া হয়, নৈকট্যশীল করা হয়। পেরেশানি শাস্তিস্বরূপ, নাকি কল্যাণময় বুঝব কিভাবে?
রোগ-ব্যা’ধিসহ নানাবিধ পেরেশানিতে পতিত হয়ে কিছু মানুষ আল্লাহর দিকে ধাবিত হওয়া ছেড়ে দেয়। অ’ভিযোগ করে এবং বলে—(নাউজু বিল্লাহ) এ রোগব্যা’ধি ও পেরেশানির জন্য আমিই বাকি ছিলাম? আমাকে কেন রোগব্যা’ধি দেওয়া হচ্ছে? আমার ওপরই এত পেরেশানি কেন? এবং আল্লাহর প্রদত্ত হুকুম-আহকাম পরিত্যাগ করে। আগে নামাজ পড়ত, এখন নামাজ পড়ে না। আগে জিকির-আজকার করত, এখন করে না। পেরেশানি থেকে বাঁচার জন্য দুনিয়াবি সব উপকরণ অবলম্বন করে। কিন্তু আল্লাহর কাছে তাওবা-ইস্তিগফার করে না, দোয়া করে না। বুঝতে হবে, এ পেরেশানি তাদের ওপর শাস্তিস্বরূপ এসেছিল।

আবার কিছু মানুষ রোগব্যা’ধিসহ নানাবিধ পেরেশানিতে পতিত হওয়া সত্ত্বেও আল্লাহর দিকে ধাবিত হয়। কোনোরূপ অ’ভিযোগ করে না; বরং দোয়া করে—হে আল্লাহ আমি দুর্বল, এ রোগব্যা’ধি ও পেরেশানির কষ্ট সহ্য করার ক্ষমতা আমার নেই, অনুগ্রহ করে আমাকে এর থেকে নাজাত দিন। অসুস্থতার নিয়ামতকে সুস্থতার নিয়ামতে পরিণত করে দিন। এবং ইবাদতের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। নাফরমানি ছেড়ে দেয়। বুঝতে হবে, এ পেরেশানি তাদের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য, তাদের সওয়াব দেওয়ার জন্য ও আরো নৈকট্যশীল করার জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে এসেছিল। ইরশাদ হয়েছে, ‘অবশ্যই তোমাদের পরীক্ষা করব কিছুটা ভয়, ক্ষুধা, মাল ও জীবনের ক্ষতি এবং ফল-ফসল বিনষ্টের মাধ্যমে। তবে সুসংবাদ দাও সবরকারীদের। যখন তারা বিপদে পতিত হয়, তখন বলে, নিশ্চয় আমরা সবাই আল্লাহর জন্য এবং আমরা সবাই তাঁরই সান্নিধ্যে ফিরে যাব।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৫৫-১৫৬)

সুস্থতা বিরাট নিয়ামত
সুস্থতা আল্লাহর এক বিরাট নিয়ামত। ব্যক্তি ও জাতির উন্নতির জন্য সুস্থতা জরুরি। সুখী ও সক্রিয় জীবনযাপনের জন্য সুস্বাস্থ্য আবশ্যক। অসুস্থ ব্যক্তির কোনো কিছুই ভালো লাগে না। প্রবাদ আছে, ‘সুস্থতাই সব সুখের মূল’। নবীজি (সা.) বলেছেন, ‘অসুস্থতার আগে সুস্থতাকে গণিমত মনে করো।’ আরেক হাদিসে আছে, ‘দুটি নিয়ামতের ব্যাপারে অসংখ্য মানুষ প্রতারিত। সুস্থতা ও অবসর।’ (বুখারি, হাদিস : ৬৪১২)

ইসলামে স্বাস্থ্য পরিচর্যার তাগিদ
ইসলাম স্বাস্থ্য পরিচর্যার তাগিদ দিয়েছে। স্বাস্থ্য রক্ষার নানামুখী গাইডলাইন দিয়েছে। স্বাস্থ্য পরিচর্যার দুটি মৌলিক দিক রয়েছে। প্র’তিরোধমূলক ও প্রতিষে’ধকমূলক। এ দুটির ব্যাপারেই ইসলামের মৌলিক নির্দেশনা রয়েছে। স্বাস্থ্য রক্ষা ও সুস্থতার জন্য প্র’তিরোধমূলক বিষয়গুলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এগুলোর মধ্যে রয়েছে— পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, প্রয়োজনীয় পানাহার ও বিশ্রামসহ স্বাস্থ্যবিষয়ক যাবতীয় সতর্কতা অবলম্বন। আর প্র’তিষেধকমূলক ব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে—উপযুক্ত চিকিৎসা ও সেবা-শুশ্রূষা ইত্যাদি।

সুস্থতা দানের মালিক একমাত্র আল্লাহ
ছোট-বড় কত রোগে মানুষ আ’ক্রা’ন্ত হয়। সুন্নত হিসেবে ডাক্তারের কাছে যায়। ওষুধ সেবন করে। কিন্তু ডাক্তার বা ওষুধ শেফা দিতে পারে না, শেফা দেন একমাত্র আল্লাহ। কেননা একই ওষুধ, একই অসুস্থতা। একজন সুস্থ হয়, আরেকজন সুস্থ হয় না। একজনের জন্য ওষুধ কার্যকর হয়, আরেকজনের জন্য কার্যকর হয় না। বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা এ কথাও বলে থাকেন, একজন রোগীকে কোনো অসুস্থতার কারণে এক ধরনের ওষুধ দেওয়া হয়, সে সুস্থও হয়। ছয় মাস পর সে আবার একই রোগে আ’ক্রা’ন্ত হয়, তাকে আবার সেই ওষুধই দেওয়া হয়। কিন্তু এবার সে সুস্থ হয় না, ওষুধ কাজ করে না। কেন হয় না? কারণ—এ ওষুধ তার শরীরের জন্য ফিট নয় এবং তাতে আল্লাহর হুকুম নেই, তাঁর ইচ্ছা নেই। ইরশাদ হয়েছে, ‘যদি আল্লাহ তোমাকে কোনো দুর্দশা দ্বারা স্পর্শ করেন, তবে তিনি ছাড়া তা দূরকারী কেউ নেই।’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ১৭)

কোরআনে ইবরাহিম (আ.)-এর কথা বর্ণিত হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘যখন আমি অসুস্থ হই তখন তিনিই আমাকে সুস্থতা দান করেন।’ (সুরা : শুআরা, আয়াত : ৮০)

তাই কোনো রোগব্যাধি আ’ক্র’মণ করলে আরোগ্য লাভের জন্য আল্লাহর কাছেই সাহায্য চাইতে হবে। যদিও সুন্নত হিসেবে চিকিৎসাও চালিয়ে যেতে হবে। দোয়া এবং দাওয়া দুটিই জরুরি। তবে ঈমানদারের জন্য আল্লাহর ওপর আস্থা রাখা এবং তাঁর কাছে সাহায্য চাওয়া সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। মহান আল্লাহ সবাইকে আজাব ও গজব থেকে হেফাজতে রাখুন।

লেখক : মুহাদ্দিস, জামিয়া আম্বরশাহ আল ইসলামিয়া, কারওয়ান বাজার, ঢাকা।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.