করোনাকালের নববর্ষ

চারুকলা লকডাউন। কোনো আয়োজন নেই এবারের নববর্ষে। নাগরিক বর্ষবরণের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা চারুকলার এ দৃশ্য যেন পুরো দেশের প্রতীক। ছবি: লেখক
চারুকলা লকডাউন। কোনো আয়োজন নেই এবারের নববর্ষে।

নাগরিক বর্ষবরণের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা চারুকলার এ দৃশ্য যেন পুরো দেশের প্রতীক। ছবি: লেখক
চারুকলায় উন্মাদনা নেই, রমনার বটমূলে ছায়ানটের গান নেই, মঙ্গল শোভাযাত্রা নেই, পান্তা ইলিশ নেই, ধামরাইয়ের হাজরার শোভাযাত্রাও নেই, নতুন কাপড় নেই, মানুষের মুখে হাসি নেই, ঘরে স্বজন নেই, মেলা নেই, বাতাসা নেই, গরম জিলাপি নেই, ঢাক নেই, ঢোল নেই, তালপাতার বাঁশি নেই, রঙিন ঘূর্ণি নেই, হাওয়াই মিঠাই নেই, রাস্তাঘাটে মানুষ নেই, রবীন্দ্রনাথ নেই, লালন নেই, নজরুল নেই।

এত নেই আর নেইয়ের মধ্যে এসেছে আমাদের নববর্ষ। আমাদের একমাত্র অসাম্প্রদায়িক উৎসব। চারদিকে মৃত্যুভয়ে আক্রান্ত মানুষ, যন্ত্রণাক্লিষ্ট অসুস্থ শরীর, উদ্বিগ্ন স্বজন। আক্রান্ত মানুষ সামনে রেখে শুভেচ্ছা জানানো যায় না, বিপন্ন মানুষের মধ্যে উৎসব হয় না। এ কারণে নতুন বছরের শুভেচ্ছাও নেই।

এক বছর আগের বর্ষবরণে চারুকলা ছিল মৌতাতে ভরপুর। রঙিন পোশাকে সুবেশ তরুণ–তরুণীর ঢল ছিল, রঙিন বেলুন হাতে অবাক বিস্ময়ে বাবার ঘাড়ে ছিল ছোট্ট শিশু, ছিল ভেঁপুর কর্কশ শব্দ, ছিল হাওয়াই মিঠাই, ছিল সুরের নহর, ছিল প্রাণোচ্ছল মানুষের পদভারে কম্পিত প্রাঙ্গণ। অথচ এক বছর বাদে আমাদের নাগরিক বর্ষবরণের প্রাণকেন্দ্র শাহবাগ এখন নিষ্প্রাণ। চারুকলা লকডাউন। বকুলতলা নিঃশব্দ। চারুকলার প্রাচীরে পুরোনো পলেস্তারায় নতুন রঙের প্রলেপ পড়েনি এবার। হয়নি কোনো নতুন আলপনা।

প্রাচীরের গা ঘেঁষে রঙিন চুড়ি আর লেইস ফিতা, বাঁশি ও খেলনার দোকান বসেনি। সেখানে বসে বিরক্ত মুখে প্রায় মানুষহীন চারুকলা পাহারা দিচ্ছেন কিছু ঘরহীন মানুষ। সোহরাওয়ার্দী পার্কে ঢোকার প্রায় সব পথ বন্ধ। কোনো কোনো পথে পুলিশের সদস্যরা দাঁড়িয়ে আছেন মানুষ আসবে না জেনেও। শাহবাগের ফুলের বাজার বন্ধ। কোথাও কোনো সৌরভ নেই নিষ্প্রাণ শাহবাগে। শুধু শাহবাগ নয়, পুরো শহর নিষ্প্রাণ, পুরো দেশে নৈঃশব্দ্য।
আমরা যখন ১৪২৭ বাংলা সনে প্রবেশ করছি, তখন দেশে করোনা আক্রান্তের পরিসংখ্যানের গ্রাফ ওপরের দিকে উঠছে।

যতই করোনা পরীক্ষা জোরদার হচ্ছে, আক্রান্তের সংখ্যা ততই বাড়ছে। ওয়ার্ল্ডোমিটার টিক টিক করে আমাদের জানাচ্ছে, পৃথিবীতে করোনাভাইরাস সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ১৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশে মৃতের সংখ্যা প্রায় ৪০। এত মৃত্যু নিয়ে আমরা কে কাকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানাব?

‘শিরেসংক্রান্তি’ বলে একটি বাগ্‌ধারা আছে বাংলা ভাষায়। এর অর্থ আসন্ন বিপদ। শিরেসংক্রান্তি নিয়ে আমরা চৈত্রসংক্রান্তি পার করেছি। আর করোনার বিপদ মাথায় নিয়েই প্রবেশ করেছি নতুন একটি বছরে। তারপরও জীবন থেমে নেই। ঘরে ঘরে কিছু প্রস্তুতি চলছে।

করোনার ছোঁয়া বাঁচিয়ে এখনো যাঁরা সুস্থ আছেন, তাঁরা জীবনের জয়গান গাইবার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন ঘরবন্দী থেকেও। কোনো বাড়ির রান্নাঘর থেকে বাটা মসলা কিছুটা খোশবাই ছড়াচ্ছে। নির্মল বাতাসে কোথাও থেকে ইলিশের গন্ধ ঝাপটা মারছে নাকে। কোথাও একটি শিশু নতুন জামা গায়ে বারান্দার রেলিং ধরে নতুন বছরের নতুন দিন দেখার চেষ্টা করছে।

এ সবকিছুই আমাদের স্পর্শ করছে। কারণ, আমরা এখনো বেঁচেবর্তে আছি, নতুন বছরে আমরা ভিন্ন পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর চেষ্টা করে যাচ্ছি প্রাণপণে। এই বেঁচে থাকার আনন্দ এর আগে কোনো নববর্ষে আমাদের ভাগাভাগি করে নিতে হয়নি। আমরা বরং নতুন বছরের আশা–আকাঙ্ক্ষাগুলোই ভাগাভাগি করে নিয়ে উদ্বেলিত হয়েছি, আশায় বুক বেঁধেছি। অথচ এক বছরের ব্যবধানে আমাদের ঘরবন্দী বর্ষবরণের স্বাদ নিতে হচ্ছে।

চারুকলার দেয়ালে নতুন রঙের প্রলেপ নেই। নেই কোনো নতুন আলপনা। ছবি: লেখক
চারুকলার দেয়ালে নতুন রঙের প্রলেপ নেই। নেই কোনো নতুন আলপনা। ছবি: লেখক
গ্রামদেশের নিয়ম চৈত্রসংক্রান্তিতে তিতা খাবার খেয়ে পুরোনো বছরকে বিদায় দেওয়া। নতুন বছরে মিষ্টিমুখ করে, ভালোমন্দ খেয়ে নতুন আশায় বুক বাঁধা।

নতুন বছরে আসুন নতুন আশায় বুক বাঁধি এই ভেবে যে করোনায় প্রতিদিন যত মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে কিংবা মৃত্যুবরণ করছে, তেমনি সুস্থও হচ্ছে মানুষ। ওয়ার্ল্ডোমিটার জানাচ্ছে, করোনাভাইরাসকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ৪ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি মানুষ সেরে উঠেছেন সারা বিশ্বে।

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন ল্যাবরেটরিতে বিজ্ঞানীরা মানুষের জন্য প্রতিষেধক আবিষ্কারের দিকে ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছেন। স্থানীয়ভাবে অনেক ওষুধ তৈরির খবর পাওয়া যাচ্ছে। আক্রান্ত মানুষের পাশে তো বটেই, নিরন্ন, নিরাশ্রয় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে মানুষই। মানুষের প্রয়োজনেই এগিয়ে এসেছেন বিত্তবান মানুষ। আনন্দযজ্ঞের যত কমতিই থাক, নতুন বছরে এর চেয়ে ভালো খবর আর কী হতে পারে?

নতুন বছরের শুভেচ্ছা সেই সব মানুষকে, যাঁরা করোনামুক্ত হয়ে নতুন জীবনের স্বপ্ন দেখছেন। সেই সব মানুষকে শুভেচ্ছা যাঁরা করোনাক্লান্ত পৃথিবীকে করোনামুক্ত করতে প্রাণান্ত পরিশ্রম করছেন প্রতিদিন। সেই সব মানুষকে শুভেচ্ছা, যাঁরা অর্থ দিয়ে, বিত্ত দিয়ে, প্রজ্ঞা দিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। শুভেচ্ছা সেই সব মানুষকে, যাঁরা আমাদের নিরাপদ রাখার আপ্রাণ চেষ্টায় ভুলে গেছেন পরিবার-স্বজনের কথা।

গ্রামদেশের নিয়ম চৈত্রসংক্রান্তিতে তিতা খাবার খেয়ে পুরোনো বছরকে বিদায় দেওয়া। নতুন বছরে মিষ্টিমুখ করে, ভালোমন্দ খেয়ে নতুন আশায় বুক বাঁধা। নতুন বছরে আসুন নতুন আশায় বুক বাঁধি এই ভেবে যে করোনায় প্রতিদিন যত মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে কিংবা মৃত্যুবরণ করছে, তেমনি সুস্থও হচ্ছে মানুষ। ওয়ার্ল্ডোমিটার জানাচ্ছে, করোনাভাইরাসকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ৪ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি মানুষ সেরে উঠেছেন সারা বিশ্বে।

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন ল্যাবরেটরিতে বিজ্ঞানীরা মানুষের জন্য প্রতিষেধক আবিষ্কারের দিকে ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছেন। স্থানীয়ভাবে অনেক ওষুধ তৈরির খবর পাওয়া যাচ্ছে। আক্রান্ত মানুষের পাশে তো বটেই, নিরন্ন, নিরাশ্রয় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে মানুষই। মানুষের প্রয়োজনেই এগিয়ে এসেছেন বিত্তবান মানুষ। আনন্দযজ্ঞের যত কমতিই থাক, নতুন বছরে এর চেয়ে ভালো খবর আর কী হতে পারে?

নতুন বছরের শুভেচ্ছা সেই সব মানুষকে, যাঁরা করোনামুক্ত হয়ে নতুন জীবনের স্বপ্ন দেখছেন। সেই সব মানুষকে শুভেচ্ছা যাঁরা করোনাক্লান্ত পৃথিবীকে করোনামুক্ত করতে প্রাণান্ত পরিশ্রম করছেন প্রতিদিন। সেই সব মানুষকে শুভেচ্ছা, যাঁরা অর্থ দিয়ে, বিত্ত দিয়ে, প্রজ্ঞা দিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। শুভেচ্ছা সেই সব মানুষকে, যাঁরা আমাদের নিরাপদ রাখার আপ্রাণ চেষ্টায় ভুলে গেছেন পরিবার-স্বজনের কথা। সেই সব মানুষকে শুভেচ্ছা, মৃত্যুপথযাত্রী রোগীর বুকে হাত রেখে যাঁরা এখনো স্বপ্ন দেখিয়ে যাচ্ছেন, আমরা করব জয়।

নববর্ষের শুভেচ্ছা সবাইকে, যারা এখনো বেঁচে আছি আরেকটি নববর্ষের আনন্দযজ্ঞে শামিল হওয়ার দূরপ্রসারী স্বপ্ন নিয়ে। ধন্যবাদ আমাদের স্বপ্নকে

গোপনে দান করলে আরশের নিচে ছায়া পাওয়া যাবে কিয়ামতের দিন !

যে ব্যক্তি গোপনে দান-খয়রাত করে, আল্লাহ তাকে কিয়ামতের দিন সুশীতল ছায়াতলে স্থান দেবেন।

এ ছাড়া আরও ছয় প্রকারের লোককে কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাঁর সুশীতল ছায়াতলে স্থান দেবেন। সর্বাধিক হাদীস বর্ণনাকারী সাহাবি হযরত আবু হুরাইরা (রা:) বর্ণনা করেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, সাত ধরণের লোককে কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাঁর সুশীতল ছায়াতলে স্থান দেবেন।

যে দিন তাঁর ছায়া ব্যতিত আর কোন ছায়াই থাকবেনা। সেই সৌভাগ্যবান ব্যক্তিরা হলেন- ১.ন্যায়বিচারক বা শাসক বা নেতা । ২.মহান আল্লাহর ইবাদতে মশগুল যুবক। ৩.মসজিদের সাথে সম্পৃক্ত হৃদয়ের অধিকারী ব্যক্তি।

৪.যে দুই ব্যক্তি শুধু মাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির লক্ষে পরস্পর বন্ধুত্ব করে ও ঐক্যবদ্ধ থাকে এবং এজন্যই তারা আবার বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ৫. এমন পুরুষ, যাকে কোন উচ্চ বংশের সুন্দুরী নারী অসৎ কাজের দিকে ডেকেছে; কিন্তু সে জানিয়ে দিয়েছে, আমি আল্লাহকে ভয় করি।

৬. যে ব্যক্তি এত গোপনে দান-খয়রাত করে যে, তার ডান হাত কি করছে বাম হাতও তা জানতে পারেনি এবং ৭. এমন ব্যক্তি যে নির্জনে আল্লাহর যিকির করে এবং দু’ চোখ থেকে পানি ঝরে (ক্রন্দন করে) (বুখারী ও মুসলিম)

প্রসঙ্গত, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব, মানবতার মুক্তির দূত, সাইয়্যেদুল মুরসালিন খাতামুননাবিয়ীন হযরত মুহাম্মদ (সা:)কে আল্লাহ ছোবাহানাহু তায়ালা বিশ্ববাসীর জন্য রহমত স্বরূপ এ পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন।

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনে বলেছেন- তোমাদের জন্য রাসুলের জীবনীর মধ্যে রয়েছে উত্তম আদর্শ। তাঁর প্রতিটি কথা, কাজ, অনুমোদন, নির্দেশনা, আদেশ, নিষেধ ও উপদেশ দুনিয়া-আখেরাতের কল্যাণের বার্তাবাহী।

আল্লাহই রক্ষা করতে পারেন, সুস্থতা দানের মালিক একমাত্র আল্লাহ

মুফতি মুহাম্মাদ ইসমাঈল : রোগে আক্রান্ত হওয়া, অভাবে পতিত হওয়া, ঋণগ্রস্ত হওয়া ও বেকার হওয়াসহ হাজারো পেরেশানিতে মানুষ ভোগে। এ পেরেশানি দুই ধরনের—

এক. পেরেশানি আল্লাহর পক্ষ থেকে শাস্তিস্বরূপ এসে থাকে। পাপ-নাফরমানির প্রকৃত শাস্তি তো বান্দা পরকালেই পাবে। কিন্তু মানুষ যখন সীমাহীন অবাধ্যতায় লিপ্ত হয়, তখন আল্লাহ ইহকালেও আজাবের কিছু নমুনা প্রকাশ করে দেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘(পরকালের) বড় শাস্তির পূর্বে আমি অবশ্যই তাদের (ইহকালে) সামান্য শাস্তি আস্বাদন করাব, যেন তারা (মন্দ কাজ থেকে) প্রত্যাবর্তন করে।’ (সুরা : সাজদা, আয়াত : ২১)

দুই. পেরেশানির মাধ্যমে বান্দার মর্যাদা উন্নীত হতে থাকে। এর বিনিময়ে তাকে সওয়াব দেওয়া হয়, নৈকট্যশীল করা হয়। পেরেশানি শাস্তিস্বরূপ, নাকি কল্যাণময় বুঝব কিভাবে?
রোগ-ব্যা’ধিসহ নানাবিধ পেরেশানিতে পতিত হয়ে কিছু মানুষ আল্লাহর দিকে ধাবিত হওয়া ছেড়ে দেয়। অ’ভিযোগ করে এবং বলে—(নাউজু বিল্লাহ) এ রোগব্যা’ধি ও পেরেশানির জন্য আমিই বাকি ছিলাম? আমাকে কেন রোগব্যা’ধি দেওয়া হচ্ছে? আমার ওপরই এত পেরেশানি কেন? এবং আল্লাহর প্রদত্ত হুকুম-আহকাম পরিত্যাগ করে। আগে নামাজ পড়ত, এখন নামাজ পড়ে না। আগে জিকির-আজকার করত, এখন করে না। পেরেশানি থেকে বাঁচার জন্য দুনিয়াবি সব উপকরণ অবলম্বন করে। কিন্তু আল্লাহর কাছে তাওবা-ইস্তিগফার করে না, দোয়া করে না। বুঝতে হবে, এ পেরেশানি তাদের ওপর শাস্তিস্বরূপ এসেছিল।

আবার কিছু মানুষ রোগব্যা’ধিসহ নানাবিধ পেরেশানিতে পতিত হওয়া সত্ত্বেও আল্লাহর দিকে ধাবিত হয়। কোনোরূপ অ’ভিযোগ করে না; বরং দোয়া করে—হে আল্লাহ আমি দুর্বল, এ রোগব্যা’ধি ও পেরেশানির কষ্ট সহ্য করার ক্ষমতা আমার নেই, অনুগ্রহ করে আমাকে এর থেকে নাজাত দিন। অসুস্থতার নিয়ামতকে সুস্থতার নিয়ামতে পরিণত করে দিন। এবং ইবাদতের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। নাফরমানি ছেড়ে দেয়। বুঝতে হবে, এ পেরেশানি তাদের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য, তাদের সওয়াব দেওয়ার জন্য ও আরো নৈকট্যশীল করার জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে এসেছিল। ইরশাদ হয়েছে, ‘অবশ্যই তোমাদের পরীক্ষা করব কিছুটা ভয়, ক্ষুধা, মাল ও জীবনের ক্ষতি এবং ফল-ফসল বিনষ্টের মাধ্যমে। তবে সুসংবাদ দাও সবরকারীদের। যখন তারা বিপদে পতিত হয়, তখন বলে, নিশ্চয় আমরা সবাই আল্লাহর জন্য এবং আমরা সবাই তাঁরই সান্নিধ্যে ফিরে যাব।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৫৫-১৫৬)

সুস্থতা বিরাট নিয়ামত
সুস্থতা আল্লাহর এক বিরাট নিয়ামত। ব্যক্তি ও জাতির উন্নতির জন্য সুস্থতা জরুরি। সুখী ও সক্রিয় জীবনযাপনের জন্য সুস্বাস্থ্য আবশ্যক। অসুস্থ ব্যক্তির কোনো কিছুই ভালো লাগে না। প্রবাদ আছে, ‘সুস্থতাই সব সুখের মূল’। নবীজি (সা.) বলেছেন, ‘অসুস্থতার আগে সুস্থতাকে গণিমত মনে করো।’ আরেক হাদিসে আছে, ‘দুটি নিয়ামতের ব্যাপারে অসংখ্য মানুষ প্রতারিত। সুস্থতা ও অবসর।’ (বুখারি, হাদিস : ৬৪১২)

ইসলামে স্বাস্থ্য পরিচর্যার তাগিদ
ইসলাম স্বাস্থ্য পরিচর্যার তাগিদ দিয়েছে। স্বাস্থ্য রক্ষার নানামুখী গাইডলাইন দিয়েছে। স্বাস্থ্য পরিচর্যার দুটি মৌলিক দিক রয়েছে। প্র’তিরোধমূলক ও প্রতিষে’ধকমূলক। এ দুটির ব্যাপারেই ইসলামের মৌলিক নির্দেশনা রয়েছে। স্বাস্থ্য রক্ষা ও সুস্থতার জন্য প্র’তিরোধমূলক বিষয়গুলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এগুলোর মধ্যে রয়েছে— পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, প্রয়োজনীয় পানাহার ও বিশ্রামসহ স্বাস্থ্যবিষয়ক যাবতীয় সতর্কতা অবলম্বন। আর প্র’তিষেধকমূলক ব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে—উপযুক্ত চিকিৎসা ও সেবা-শুশ্রূষা ইত্যাদি।

সুস্থতা দানের মালিক একমাত্র আল্লাহ
ছোট-বড় কত রোগে মানুষ আ’ক্রা’ন্ত হয়। সুন্নত হিসেবে ডাক্তারের কাছে যায়। ওষুধ সেবন করে। কিন্তু ডাক্তার বা ওষুধ শেফা দিতে পারে না, শেফা দেন একমাত্র আল্লাহ। কেননা একই ওষুধ, একই অসুস্থতা। একজন সুস্থ হয়, আরেকজন সুস্থ হয় না। একজনের জন্য ওষুধ কার্যকর হয়, আরেকজনের জন্য কার্যকর হয় না। বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা এ কথাও বলে থাকেন, একজন রোগীকে কোনো অসুস্থতার কারণে এক ধরনের ওষুধ দেওয়া হয়, সে সুস্থও হয়। ছয় মাস পর সে আবার একই রোগে আ’ক্রা’ন্ত হয়, তাকে আবার সেই ওষুধই দেওয়া হয়। কিন্তু এবার সে সুস্থ হয় না, ওষুধ কাজ করে না। কেন হয় না? কারণ—এ ওষুধ তার শরীরের জন্য ফিট নয় এবং তাতে আল্লাহর হুকুম নেই, তাঁর ইচ্ছা নেই। ইরশাদ হয়েছে, ‘যদি আল্লাহ তোমাকে কোনো দুর্দশা দ্বারা স্পর্শ করেন, তবে তিনি ছাড়া তা দূরকারী কেউ নেই।’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ১৭)

কোরআনে ইবরাহিম (আ.)-এর কথা বর্ণিত হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘যখন আমি অসুস্থ হই তখন তিনিই আমাকে সুস্থতা দান করেন।’ (সুরা : শুআরা, আয়াত : ৮০)

তাই কোনো রোগব্যাধি আ’ক্র’মণ করলে আরোগ্য লাভের জন্য আল্লাহর কাছেই সাহায্য চাইতে হবে। যদিও সুন্নত হিসেবে চিকিৎসাও চালিয়ে যেতে হবে। দোয়া এবং দাওয়া দুটিই জরুরি। তবে ঈমানদারের জন্য আল্লাহর ওপর আস্থা রাখা এবং তাঁর কাছে সাহায্য চাওয়া সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ। মহান আল্লাহ সবাইকে আজাব ও গজব থেকে হেফাজতে রাখুন।

লেখক : মুহাদ্দিস, জামিয়া আম্বরশাহ আল ইসলামিয়া, কারওয়ান বাজার, ঢাকা।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.