হে আল্লাহ! করোনামুক্ত রমজান দান করুন

রহমতের বার্তাবাতী মাস রমজান সমাগত। রহমতের মাসে করোনামুক্ত হয়ে মহান আল্লাহর জন্য নির্ধারিত ইবাদত রোজা পালনই মুমিন মুসলমানের একান্ত কামনা। তাই সামনে আগত রমজানে মহান আল্লাহর প্রতিদান লাভে মহামারিমুক্ত রমজান কামনায় হৃদয়ের গভীর থেকে আল্লাহর কাছে মুমিনের আকুতিভরা প্রার্থনা-
اَللَّهُمَّ سَلِّمْنِا لِرَمَضَان
আল্লাহুম্মা সাল্লিমনি লিরমাদান। অর্থাৎ হে আল্লাহ! আমাদের জন্য রমজানকে শান্তিময় করে দিন। মহামারিমুক্ত শান্তিময় রমজানই তোমার কাছে চাই হে প্রভু!

এ মাসটি মূলত মহান আল্লাহর মাস। এর প্রতিদান তিনি নিজেই দেবেন। মহামারি করোনার কারণে অন্য সময়ের তুলনায় প্রায় সব মানুষই ধর্মের প্রতি বেশি মনোযোগী। তাই মহামারির এ সময়ে রমজান উপলক্ষে দেয়া বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুসংবাদগুলো হতে পারে কার্যকরী। কেননা বিশ্বনবির সুসংবাদ গ্রহণ ও হাদিসে উল্লেখিত দোয়াগুলোই মুমিনের শেষ ভরসা।

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (উম্মতের জন্য সুসংবাদ দিয়ে) ঘোষণা করেন,
যখন রমজান মাস আসে তখন আকাশের (রহমতের) দরজাসমূহ খুলে দেয়া হয়। জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। শয়তানকে শৃঙ্খলে আবদ্ধ করা হয়।’ (বুখারি)

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিভিন্নভাবে সাহাবায়ে কেরামকে রমজানের পূর্ণ প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য নানাভাবে উৎসাহিত করতেন। নিজেদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টার মাধ্যমে রমজানের আগে পরিপূর্ণ কল্যাণ লাভের পরামর্শ দিতেন। একাধিক হাদিসে রমজানের নির্বিঘ্ন ইবাদতের গ্যারান্টির বিষয়টি সুস্পষ্ট করা হয়েছে-

– হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘বরকতময় মাস রমজান তোমাদের দুয়ারে উপস্থিত হয়েছে। মাসজুড়ে রোজা পালন আল্লাহ তাআলা তোমাদের জন্য ফরজ করেছেন। এ মাসে আকাশের দরজা খুলে দেয়া হয়। জাহান্নামের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়। দুষ্টু শয়তানদের এ মাসে আটক করে রাখা হয়। এ মাসে আল্লাহ তাআলা একটি রাত রেখেছেন, যা হাজার মাস হতে উত্তম। যে ব্যক্তি এ রাতের কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হলো, সে বঞ্চিত হলো (মহাকল্যাণ থেকে)।’ (নাসাঈ)

নিরাপদ ও সুশৃঙ্খল ইবাদতের জন্য রমজান মুমিন মুসলমানের জন্য নেয়ামতস্বরূপ। উম্মতের জন্য এ নেয়ামতের সুসংবাদই দিয়েছেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। কোনো মুমিন রোজাদারকে শয়তান প্ররোচনা দিতে পারবে না। বিষয়টি এভাবে ঘোষণা দিয়েছেন বিশ্বনবি।

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘রমজানের প্রথম রাতে শয়তান ও দুষ্ট জিনদের শৃঙ্খলাবদ্ধ করা হয়। জাহান্নামের দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়, তার একটি দরজাও খোলা হয় না। খুলে দেয়া হয় জান্নাতের দরজাসমূহ, এর একটি দরজাও বন্ধ করা হয় না। একজন আহ্বানকারী সুসংবাদ ঘোষণা করতে থাকেন-

‘হে কল্যাণের প্রত্যাশী! (নেক আমলে) অগ্রসর হও। হে অকল্যাণের প্রত্যাশী! (বদ আমল থেকে) বিরত হও।’
আল্লাহ তাআলা প্রতি রাতেই জাহান্নাম থেকে অনেক মানুষকে মুক্তি দিতে থাকেন।’ (তিরমিজি)

মহামারি করোনা প্রাদুর্ভারে এ সময়ে মুমিন মুসলমানের জন্য আল্লাহর দিকে ধাবিত হওয়া খুবই জরুরি। মুমিন মুসলমানের ইবাদতের বসন্তকাল মাহে রমজান সমাগত। এ রমজানের পরিপূর্ণ রহমত বরকত মাগফেরাত ও নাজাত লাভে প্রস্তুতি নেয়ার সময় এখনই।

>> আল্লাহর কাছে জীবনের সার্বিক কল্যাণে এ দোয়া বেশি বেশি করি-
اَللَّهُمَّ اِنِّى اَسْئَلُكَ الْهُدَى وَ التُّقَى وَ الْعَفَافَ وَالْغِنَى
উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকাল হুদা ওয়াত্তুক্বা ওয়াল আফাফা ওয়াল গিনা।’
অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে হেদায়েত (পরিশুদ্ধ জীবন) কামনা করি এবং আপনার ভয় তথা পরহেজগারি কামনা করি এবং আপনার কাছে সুস্থতা তথা নৈতিক পবিত্রতা কামনা করি এবং সম্পদ-সামর্থ্য (আর্থিক স্বচ্ছলতা) কামনা করি।

>> করোনা থেকে মুক্তি লাভে এ দোয়াগুলোও বেশি বেশি পড়া-
اَللَّهُمَّ اِنِّىْ اَعُوْذُ بِكَ مِنَ الْبَرَصِ وَ الْجُنُوْنِ وَ الْجُذَامِ وَمِنْ سَىِّءِ الْاَسْقَامِ
উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিনাল বারাচি ওয়াল জুনুনি ওয়াল ঝুজামি ওয়া মিন সায়্যিয়িল আসক্বাম।’ (আবু দাউদ, তিরমিজি)
অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনার কাছে আমি শ্বেত রোগ থেকে আশ্রয় চাই। মাতাল হয়ে যাওয়া থেকে আশ্রয় চাই। কুষ্ঠু রোগে আক্রান্ত হওয়া থেকে আশ্রয় চাই। আর দুরারোগ্য ব্যাধি (যেগুলোর নাম জানিনা) থেকে আপনার আশ্রয় চাই।’

>> দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে এ দোয়া পড়া
اللَّهُمَّ احْفَظْنِي مِنْ بَيْنِ يَدَىَّ وَمِنْ خَلْفِي وَعَنْ يَمِينِي وَعَنْ شِمَالِي وَمِنْ فَوْقِي وَأَعُوذُ بِكَ أَنْ أُغْتَالَ مِنْ تَحْتِي ‏”‏ ‏.‏ قَالَ وَكِيعٌ يَعْنِي الْخَسْفَ ‏
উচ্চারণ : আল্লাহুম্মাহফাজনি মিন বাইনি ইয়াদাইয়্যা ওয়া মিন খালফি ওয়া আন ইয়ামিনি ওয়া আন শিমালি ওয়া মিন ফাওক্বি ওয়া আউজুবিকা আন উগতালা মিন তাহতি ক্বালা ওয়াকিয়ুই ইয়ানিল খাসফা।’

অর্থ : ‘হে আল্লাহ্‌! আমাকে সামনে থেকে পেছনে থেকে, আমার ডান দিক থেকে, আমার বাম দিক থেকে ও আমার উপরের দিক থেকে আমাকে হেফাজত করো। আমি তোমার নিকট আমার নিচের দিক দিয়ে আমাকে ধ্বসিয়ে দেয়া থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করি।’ (ইবনে মাজাহ, নাসাঈ, মুসনাদে আহমাদ)

> যে কোনো খারাবি তথা মন্দ থেকে মুক্ত থাকতে এ দোয়া পড়া
أَعُوْذُ بِكَلِمَاتِ اللهِ التَّامَّاتِ مِنْ شَرِّ مَا خَلَقَ
উচ্চারণ : ‘আউজু বিকালিমাতিল্লাহিত তাম্মাতি মিং শার্‌রি মা খালাক্বা।’ (মুসলিম)
অর্থ : ‘আমি আল্লাহর সব পূর্ণ কালেমাসমূহের উসিলায়, তাঁর সৃষ্ট সব (জীবাণুর/খারাবির) অনিষ্টতা থেকে তারই কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করছি।’

>> রমজান লাভের এ দোয়াও বেশি বেশি পড়া-
اَللَّهُمَّ بَارِكْ لَنَا فِىْ شَعْبَانَ وَ بَلِّغْنَا رَمَضَانَ
উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা বারিক লানা ফি শাবানা ওয়া বাল্লিগনা রামাদান।’
অর্থ : হে আল্লাহ! শাবান মাসের বরকত দান করুন আর আমাদের রমজানে পৌছে দিন।’

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে রমজানের আগমনের সুসংবাদ গ্রহণ করে ইবাদত-বন্দেগির জন্য নিজেকে যথাযথভাবে প্রস্তুতি করার তাওফিক দান করুন। হাদিসের সুসংবাদ অনুযায়ী দুনিয়া ও পরকালের কল্যাণে নিয়োজিত থাকার তাওফিক দান করুন।

হে আল্লাহ! রমজানের রহমত বরকতের ওসিলায় মহামারি করোনায় বিশ্বমানবতার প্রতি আপনার রহমত নাজিল করুন। আমিন।

এমএমএস/পিআর

ইসলাম আমার জীবনে শান্তি এনে দিয়েছে : বিশ্বকাপ জয়ী পগবা

ক’দিন আগেই হজ্জ্ব পালন করে আসছেন পল পগবা। বর্তমানে ইসলামিক কর্মকান্ডে খুবই সক্রিয় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের এ মিডফিল্ডার। আর তাই ইসলাম নিয়ে মানুষের ভুল ধারণা ফুটিয়ে তুলে নিজ ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হওয়া ব্যাখ্যা করেছেন এ তারকা খেলোয়াড়। ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য ইনডিপেনডেন্টকে পগবা জানান, ‘সবাই যেভাবে দেখছে ইসলাম সে রকম না। আমরা গণমাধ্যমে যা শুনি তা ভিন্ন কিছু। ইসলাম খুবই সুন্দর।

ইসলাম জীবন সম্পর্কে আমার ধারণা বদলে দিয়েছে। আমার ভেতরে শান্তি এনে দিয়েছে। এটা আমার জীবনে ভালো একটা পরিবর্তন এনে দিয়েছে।’ ফরাসি এই ফুটবলার বলেন, ‘আমার অনেক বন্ধুবান্ধব আছে যারা মুসলমান। আমরা সব সময় কথা বলি। আমি নিজেকেও প্রশ্ন করি। আমি আমার বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে একবার নামাজ পড়ি। তারপর বুঝতে পারি অন্য রকম লাগছে।

আমার খুব ভালো লাগছিল। তারপর থেকে আমি শুরু করি। নামাজ ইসলামের মূল স্তম্ভ। আপনি ক্ষমা চাইছেন, সবার জন্য দোয়া করছেন।’ পগবা আরো বলেন, ‘ইসলাম আমার চোখ খুলে দিয়েছে। আমাকে ভালো মানুষে পরিণত করেছে। ইসলাম মানবতাকে শ্রদ্ধা করে

জাতি শুধু ডাক্তার মঈনকে নয় এক নিবেদিতপ্রাণ চিকিৎসককে হারালো : ড. শিরীন শারমিন

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মঈন উদ্দিনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

স্পীকার ডা. মঈন উদ্দিনের রুহর মাগফেরাত কামনা করেন এবং তার শোক-সন্তপ্ত পরিবার-পরিজন ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

এক শোক বিবৃতিতে স্পীকার জানান, ডা. মঈন উদ্দিনের মৃত্যুতে জাতি এক নিবেদিতপ্রাণ চিকিৎসককে হারালো।
দেশের ক্রান্তি লগ্নে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় এই মহৎপ্রাণ চিকিৎসক নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যেভাবে মানুষের সেবা করেছেন তা সকলের জন্য অনুকরণীয় ও অনুসরণীয়।

এছাড়া, ডা. মঈন উদ্দিনের মৃত্যুতে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার মোঃ ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি এবং চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী এমপি গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বাংলাদেশকে বিনামূল্যে করোনার ওষুধ দেবে জাপান

করোনা মহামা’রির এই দুঃ’সময়ে জাপানের ফুজিফিল্ম তয়োমা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের উৎপাদন করা এভিগান রোগটি প্র’তিরোধে আশার আলো যোগাচ্ছে। তবে করোনাভাইরাসের বি’রুদ্ধে ব্যবহার করার জন্য জাপানের এই ওষুধটি নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা এখনও শেষ হয়নি। ওষুধটি প্রাথমিক পর্যায়ের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে করোনায় আক্রা’ন্ত বাংলাদেশিরা সীমিত আকারে বিনামূল্যে এই ওষুধটি পাবে বলে জানিয়েছে জাপান।

জাপানের টোকিও’তে অবস্থিত বাংলাদেশ মিশনের কাউন্সেলর এবং দূতালয় প্রধান (এইচওসি) ড. জিয়াউল আবেদিন শনিবার (১১ এপ্রিল) বলেন, জাপান সরকার বাংলাদেশকে জানিয়েছে যে, কোভিড-১৯ প্রতিরোধে সীমিত আকারে বিনামূল্যে এভিগান দেবে তারা।

ক‚টনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, মার্চের ২০ তারিখে জাপান সরকারকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, করোনা প্র’তিরোধে জাপানের উৎপাদিত এভিগান ওষুধ দিয়ে বাংলাদেশকে সহায়তা করা হোক। জবাবে জাপান সরকার জানায় যে, আপাতত সীমিত আকারে (সর্বনি¤œ ২০টি থেকে সর্বোচ্চ ১০০টি) বিনামূল্যে এই ওষুধ বাংলাদেশকে দেওয়া হবে।

টোকিও’র একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ওষুধটির কার্যকারিতা এবং পার্শ্ব প্রতি’ক্রিয়াসহ সার্বিক বিষয়ে এখনও পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা শেষে কম-বেশি ৫০টি দেশকে সীমিত আকারে এই ওষুধ দেবে জাপান। কমবেশি ৫০টি দেশে করোনা আক্রা’ন্তের ঘটনায় এভিগান ব্যবহারের ফলাফলগুলো একত্র করে ওষুধটির কার্যকারিতা যাচাই করা হবে।

এরপর যদি দেখা যায় যে, করোনার আগ্রা’সী আ’ক্র’মণ ঠে’কাতে এভিগান কার্যকর, তখনই ওষুধটি প্রচুর পরিমাণে উৎপাদন করবে জাপান। তবে সেটা কখনই বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করা হবে না বলে গত মার্চে জাপান সরকার ষ্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে। তারা বলেছে যে, আক্রা’ন্ত দেশগুলোকে এই ওষুধ বিনামূল্যে দিয়ে সহায়তা করা হবে।

দেশি-বিদেশি একাধিক জার্নাল ঘেঁটে দেখা গেছে, করোনা প্রতিরো’ধে এখনও কার্যকর প্রমাণিত কোনো টিকা বা ওষুধ আবিষ্কার হয়নি। তবে ইনফ্লুয়েঞ্জা বা ফ্লুর চিকিৎসায় ব্যবহৃত এভিগান, আরবিডল, ইন্টারফেরন আলফা টুবি, ফেভিপিরাভির, লোপিনাভির, ক্লোরোনকুইনিন, রেমডেসিভিরসহ প্রায় ডজনখানক ওষুধ করোনা প্র’তিরো’ধে পরীক্ষামূলক ব্যবহার করা হয়। যার মধ্যে এভিগান এখন পর্যন্ত করোনা বিরু’দ্ধে যু’দ্ধে এগিয়ে থাকার আশা জোগাচ্ছে।

জাপানের ফুজিফিল্ম তয়োমা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড ২০১৪ সাল থেকে ইনফ্লুঞ্জো চিকিৎসার জন্য এভিগান উৎপাদন করছে। গত ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনা আ’ক্র’মণ করার পর চীন সরকার গত মার্চে জানায় যে, জাপানের এভিগান ওষুধটি করোনা প্র’তিরোধে ভালো কাজ করছে।

চীনের কাছ থেকে এমন তথ্য পাওয়ার এক সপ্তাহের মাথায় জাপানের স্বাস্থ্য, শ্রম ও কল্যাণমন্ত্রী কাতসুনোবু কাতো বলেন, করোনার বিরু’দ্ধে এভিগান কতোটুকু কার্যকর তা পরীক্ষা করে দেখবে জাপান।’ জাপানের মন্ত্রীর ওই ঘোষণার পর থেকে এখন পর্যন্ত এভিগান নিয়ে পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে জাপান। তথ্য সূত্রঃ-আমাদেরসময়.কম

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.