ট্রাম্পের ইহুদিবাদী ইসরাইলকে রক্ষার লক্ষ্যে কাজ করছে : পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামী

0

পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামির মহাসচিব লিয়াকত বালুচ বলেছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথিত ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’ হচ্ছে শতাব্দীর সবচেয়ে বড় প্রতারণা। তিনি বার্তা সংস্থা ইরনা-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেছেন।

লিয়াকত বালুচ আরও বলেছেন, ট্রাম্পের এই পরিকল্পনা কখনোই ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধান করবে না। এই পরিকল্পনার মাধ্যমে ট্রাম্প ফিলিস্তিনিদেরকে তাদের লক্ষ্য থেকে বিচ্যুত করার ষড়যন্ত্র করেছেন।

জামায়াত নেতা বলেন, মার্কিন মিত্ররা বিশেষকরে মধ্যপ্রাচ্যের যারা এই পরিকল্পনার প্রতি সমর্থন দিচ্ছে তাদের জানা উচিৎ এতে ফিলিস্তিনিদের কোনো কল্যাণ নেই। মার্কিন সরকার সব সময় মধ্যপ্রাচ্যে নিজের অবৈধ স্বার্থ হাসিল এবং ইহুদিবাদী ইসরাইলকে রক্ষার লক্ষ্যে কাজ করছে বলে তিনি জানান।

লিয়াকত বালুচ বলেন, মুসলিম বিশ্বের মধ্যে অনৈক্যের কারণেই শত্রুরা কথিত ‘ডিল অব দ্যা সেঞ্চুরি’র মতো নানা ষড়যন্ত্র করার সাহস দেখাচ্ছে। আমেরিকা এই অঞ্চলে ‘ভাগ করো ও শাসন করো’ নীতি অনুসরণ করে মুসলমানদের মধ্যে অনৈক্য বাড়িয়ে তুলছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

জামায়াত নেতা লিয়াকত বালুচ সম্প্রতি তেহরান সফর করেছেন। ইরানের জেনারেল কাসেম সোলাইমানি হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে ইরানিদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করতে তিনি তেহরান সফর করেন। #পার্সটুডে

মিজানুর রহমান আজহারীকে নিয়ে চতুর্মুখী ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে : মাওলানা আজাদ

মাওলানা আবুল কালাম আজাদ বাশার বলেছেন, জনপ্রিয় ইসলামি বক্তা মিজানুর রহমান আজহারীকে নিয়ে চতুর্মুখী ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। সম্প্রতি এক ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্য দেয়ার সময় তিনি এ মন্তব্য করেন।

শনিবার আবুল কালাম আজাদ বাশারের ওয়াজ মাহফিলের ওই ভিডিওটি ইউটিউবে আপলোড করে রোজটিভি২৪। ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্যের শুরুতে মিজানুর রহমান আজহারীর জনপ্রিয়তা নিয়ে কথা বলেন আবুল কালাম আজাদ বাশার।

সম্প্রতি ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ ‘জামায়াতের প্রোডাক্ট’ বলে যে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে জামায়াতের প্রচারণা চালাচ্ছেন আজহারীসহ কিছু বক্তা।

বাশার বলেন, ‘আমাদের কুমিল্লার কৃতী সন্তান। বাংলাদেশের ইতিহাসে কোনো বক্তার মাহফিল শোনার জন্য এত যুবক একসঙ্গে একত্রিত হয়েছে আমার জানা নেই। এ দেশের যুবকরা সিনেমা দেখা ছেড়ে দিয়েছে। তারা ফুটবল ক্রিকেট খেলা ছেড়ে দিয়েছে। ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী পর্যন্ত এখন আমার আজহারীর মাহফিল শোনার জন্য পাগল হয়ে গেছে।’

‘যে যুবকদের আমি পারিনি সিনেমা হল থেকে ফেরাতে, আমি পারিনি তাদের ক্রিকেট খেলার মাঠে থেকে কোরআনের তাফসির মাহফিলে আনতে। কিন্তু আমার এক ভাই, আল্লাহর এক বড় নেয়ামত উনার মাহফিলে এক হাজার, ১০ হাজার, ২০ হাজার যুবক লাখ লাখ একত্রিত হচ্ছে।’

বাশার আরও বলেন, কোরআনের কথা শুনতে যদি যুবক যায়, কোনো ছাত্র যখন টুপি মাথায় দিয়ে মাদ্রাসায় যায় আমার অন্তরে আনন্দের হিন্দোল বয়ে যায়।

‘যখন মসজিদের দিকে মুসল্লি যায়, আনন্দে আমার অন্তর লাফায়। মাহফিলে যখন যুবকরা যায়, কথা ছিল আনন্দে আমার মন লাফাবে। কিন্তু কেন যায়, আজকে আমার আজহারীর বিরুদ্ধে চতুর্মুখী ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে গেছে।

তিনি আরও বলেন, ‘হয় তো আমার এই প্রিয় ভাইটিকে এই মাঠে কথা বলতে দেবে না। আলেমরা পেছন থেকে জামা টেনে ধরে, এটা কেমন চরিত্র।’

আজহারীর বিরুদ্ধে চতুর্মুখী ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে’- মাওলানা আজাদ

মাওলানা আবুল কালাম আজাদ বাশার বলেছেন, জনপ্রিয় ইসলামি বক্তা মিজানুর রহমান আজহারীকে নিয়ে চতুর্মুখী ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। সম্প্রতি এক ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্য দেয়ার সময় তিনি এ মন্তব্য করেন।

শনিবার আবুল কালাম আজাদ বাশারের ওয়াজ মাহফিলের ওই ভিডিওটি ইউটিউবে আপলোড করে রোজটিভি২৪। ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্যের শুরুতে মিজানুর রহমান আজহারীর জনপ্রিয়তা নিয়ে কথা বলেন আবুল কালাম আজাদ বাশার।

সম্প্রতি ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ ‘জামায়াতের প্রোডাক্ট’ বলে যে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে অত্যন্ত সূক্ষ্মভাবে জামায়াতের প্রচারণা চালাচ্ছেন আজহারীসহ কিছু বক্তা।

বাশার বলেন, ‘আমাদের কুমিল্লার কৃতী সন্তান। বাংলাদেশের ইতিহাসে কোনো বক্তার মাহফিল শোনার জন্য এত যুবক একসঙ্গে একত্রিত হয়েছে আমার জানা নেই। এ দেশের যুবকরা সিনেমা দেখা ছেড়ে দিয়েছে। তারা ফুটবল ক্রিকেট খেলা ছেড়ে দিয়েছে। ইউনিভার্সিটি পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী পর্যন্ত এখন আমার আজহারীর মাহফিল শোনার জন্য পাগল হয়ে গেছে।’

‘যে যুবকদের আমি পারিনি সিনেমা হল থেকে ফেরাতে, আমি পারিনি তাদের ক্রিকেট খেলার মাঠে থেকে কোরআনের তাফসির মাহফিলে আনতে। কিন্তু আমার এক ভাই, আল্লাহর এক বড় নেয়ামত উনার মাহফিলে এক হাজার, ১০ হাজার, ২০ হাজার যুবক লাখ লাখ একত্রিত হচ্ছে।’

বাশার আরও বলেন, কোরআনের কথা শুনতে যদি যুবক যায়, কোনো ছাত্র যখন টুপি মাথায় দিয়ে মাদ্রাসায় যায় আমার অন্তরে আনন্দের হিন্দোল বয়ে যায়।

‘যখন মসজিদের দিকে মুসল্লি যায়, আনন্দে আমার অন্তর লাফায়। মাহফিলে যখন যুবকরা যায়, কথা ছিল আনন্দে আমার মন লাফাবে। কিন্তু কেন যায়, আজকে আমার আজহারীর বিরুদ্ধে চতুর্মুখী ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে গেছে।

তিনি আরও বলেন, ‘হয় তো আমার এই প্রিয় ভাইটিকে এই মাঠে কথা বলতে দেবে না। আলেমরা পেছন থেকে জামা টেনে ধরে, এটা কেমন চরিত্র।’

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.