আজারবাইজানে তুর্কি সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব সংসদে পাস

আজারবাইজানে সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে তুরস্কের সংসদ। তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে স্বাক্ষরিত শান্তি চুক্তির বাস্তবায়ন পর্যবেক্ষণের জন্য সেদেশে সেনা পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তবে বিদেশে সেনা মোতায়েনের জন্য সংসদের অনুমোদন প্রয়োজন ছিল। এ কারণে সংসদে সেনা মোতায়েনের প্রস্তাব উত্থাপন করে এরদোগান সরকার। প্রত্যাশা অনুযায়ী প্রস্তাবটি সংসদে পাস হয়েছে।

নাগার্নো-কারাবাখ যুদ্ধের শুরু থেকেই আজারবাইজানের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে আজারবাইজান।

দীর্ঘ কয়েক সপ্তাহের যুদ্ধের পর গত মঙ্গলবার রাশিয়ার তত্ত্বাবধানে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান নাগার্নো-কারাবাখে যুদ্ধ বন্ধে সম্মত হয়েছে। চুক্তির বাস্তবায়ন তদারকি করতে এরই মধ্যে নাগার্নো-কারাবাখ অঞ্চলে রুশ সেনা মোতায়েন করা হয়েছ

এই দুই দেশের স্বাক্ষরিত চুক্তিতে বলা হয়েছে, আর্মেনিয়া দখলীকৃত অগদাম, লাচিন ও কালবাজার এলাকা আজারবাইজানের কাছে হস্তান্তর করবে।

চুক্তি অনুযায়ী কারাবাখ অঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য আজারবাইজানের লাচিনকে করিডোর হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি পাবে আর্মেনিয়া। তবে এর বিনিময় আর্মেনিয়াও আজারবাইজান ও নাখচিভান প্রজাতন্ত্রের মধ্যে পণ্য আনা-নেয়ার জন্য করিডোর সুবিধা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সূত্র: পার্সটুডে

ভারতে হিন্দু যুবককে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় মুসলিম তরুণীকে পুড়িয়ে হত্যা

ভারতের বিহার রাজ্যে হিন্দু যুবককে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় এক মুসলিম তরুণীকে পুড়িয়ে মারা হয়েছে। সতিশ নামে এক হিন্দু ছেলেকে বিয়ে করতে না চাওয়ায় তিন যুবক ওই মেয়েটিকে অপদস্ত করে ও কেরোসিন ঢেলে গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে তাকে একটি গর্তে ফেলে দেয়। মেয়েটির আর্তচিৎকার শুনে তার আত্মীয়স্বজন ও গ্রামবাসী এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। এর ১৭ দিন পর রোববার মেয়েটি মারা গেছে।

হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে মেয়েটি এক ভিডিও জবানবন্দিতে সতিশ ও তার দুই সহযোগীর নাম বলে। ভিডিওটি সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হলে তা সারা দেশে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি করে এবং অবিলম্বে অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবি ওঠে।

পুলিশের প্রতিবেদনে বলা হয়, অভিযুক্তদের সঙ্গে মেয়েটির কথা কাটাকাটি হয়। তবে তাকে নিপীড়ন করা হয়েছিলো কিনা তা আরো তদন্ত করলে জানা যাবে।

মেয়েটির মা বিহার পুলিশের বিরুদ্ধে অবহেলার অভিযোগ এনেছে। তিনি বলেন, দুই সপ্তাহ আগে এফআইআর দায়ের করা হলেও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

তিন বলেন, আমরা বিচার চাই। আমার মেয়ে ১৭ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়েছে। আমরা অসহায়, কাপড় সেলাই করে বেঁচে আছি। সে কারণেই ওরা মেয়েটিকে পুড়িয়ে মেরেছে। আর চার মাস পর ওর বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো।

পুলিশ দাবি করে অভিযুক্তরা পালিয়ে যাওয়ায় তাদের গ্রেফতার করতে দেরি হচ্ছে।

বৈশালির এসপি মনিশ বলেন, মেয়েটির বয়স ১৯-২০ বছর। সে তিন জনের বিরুদ্ধে তাকে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে মারতে চাওয়ার অভিযোগ করেছে। গত রোববার সে মারা গেছে। ৩০ অক্টোবর ঘটনাটি ঘটলেও এফআইআর দায়ের করা হয় ২ নভেম্বর।

এসপি আরো জানান যে মেয়েটির অভিযোগ মতো তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এরা হলো সতিশ, তার পিতা ও চাচাতো ভাই চন্দন। সূত্র: জিভিএস

তুষারধসে চাপা পড়ে ভারতীয় সেনার মৃত্যু, আহত ২

সতর্কবার্তা ছিলই। তার মধ্যেই উপত্যকায় সেনা ছাউনিতে তুষারধসে মৃত্যু হল এক জওয়ানের। আহত আরও দুই জওয়ান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

সেনা সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার রাত আটটা নাগাদ উত্তর কাশ্মীরের কুপওয়াড়ার তাংধার সেক্টরে ধস নামে। একটি সেনা ছাউনির উপরে আছড়ে পড়ে বিশাল বরফের ঢেউ। তাতে অনেকটা দূরে গড়িয়ে যান তিন সেনা জওয়ান। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই ৩ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই ১ জনের মৃত্যু হয়।

কয়েক দিন আগে থেকেই উপত্যকার বিভিন্ন এলাকায় ভারী তুষারপাত শুরু হয়েছে। ক্রমেই আবহাওয়ার অবনতি হওয়ায় তুষারধসের সতর্কবার্তা জারি করে আবহাওয়া দফতর। মধ্যম মাত্রার সতর্কবার্তা জারি করা হয় কুপওয়াড়া, বন্দিপোরার মতো জেলায়। গান্ডেরবাল ও বারামুলা জেলায় জারি হয় কম মাত্রার সতর্কবার্তা। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

নিউজিল্যান্ডের প্রথম হিজাব পরা পুলিশ কর্মকর্তা জাইনা আলী

নিউজিল্যান্ড পুলিশ বাহিনীর প্রথম হিজাবি নারী কর্মকর্তা জাইনা আলী। সম্প্রতি তিনি দেশটির পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেছেন।

ফিজি বংশোদ্ভূত ওয়েলিংটনের বাসিন্দা ৩০ বছর বয়সী এই মুসলিম নারী এখন ইতিহাসের অংশ। খবর নিউজিল্যান্ড হ্যারাল্ডের।

জাইনা আলী বলেন, আমার অনেক ভালো লাগছে এটি ভেবে যে, নিউজিল্যান্ডের পুলিশ ইউনিফরম পরে আমি সমাজসেবা করব এবং এর সঙ্গে আমি হিজাবও ব্যবহার করতে পারব।

আমি মনে করি, পুলিশ বাহিনীতে হিজাব অনুমোদনের পর মুসলিম নারীরা পুলিশ বাহিনীতে যোগদানের জন্য আগ্রহ পোষণ করবেন।

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার সময় জাইনা আলী একটি বেসরকারি সংস্থার গ্রাহকসেবা বিভাগে কর্মরত ছিলেন। ওই ঘটনার পর তিনি দেশের মুসলিম সম্প্রদায়ের সহায়তা করার জন্য পুলিশ বাহিনীতে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন।

পুলিশ কলেজ থেকে স্নাতক শেষ করে এ বাহিনীর নকশাকৃত ও অনুমোদিত হেডস্কার্ফ পরিধান করে পুলিশে যোগদান করেন।

দেশটির সংখ্যালঘু মুসলমানদের সহায়তার উদ্দেশ্যে নিয়োগপ্রাপ্তদের মধ্যে জাইনা আলী সে দেশের পুলিশ বাহিনীর প্রথম হিজাবি নারী অফিসার।

মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার বিষয়টি উল্লেখ করে জাইনা আলী বলেন, আরও আগে যদি পুলিশ বাহিনীতে অংশগ্রহণ করতাম, তা হলে ওই ঘটনায় হতাহত মুসলমানদের সহায়তা করতে পারতাম।

নিউজিল্যান্ডের পুলিশ প্রশাসন ঘোষণা করেছে, তাদের বাহিনীতে দক্ষতাসম্পন্ন সদস্য এবং বিভিন্ন জাতি ও ধর্মের অনুসারীদের প্রয়োজন। দেশের সংখ্যালঘুদের অধিকতর সেবা প্রদানের জন্য পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে বৈচিত্র্য অপরিহার্য।

এর আগে নিউজিল্যান্ড পুলিশ প্রথমবারের মতো তাদের সরকারি ইউনিফরমে হিজাব অন্তর্ভুক্ত করে। তাদের যুক্তি, এটি মুসলিম নারীদের মানসিকতাকে আরও শক্তিশালী করবে।

বাংলাদেশে জাপানি অর্থায়নে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের কাজ শুরু

কক্সবাজারের মহেশখালীতে নির্মান হতে যাওয়া মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর উন্নয়ন প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। সোমবার (১৬ নভেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এসএম আবুল কালাম আজাদ এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়ছেন।

১৭ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০২৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে নির্মাণ কাজ শেষ হলে মাতারবাড়ী বন্দরের টার্মিনালে ভিড়তে পারবে ১৮.৫ মিটার গভীরতার জাহাজ।

সোমবার বিকেলে চট্টগ্রাম বন্দর ভবন চত্বরে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন মাতারবাড়ী পোর্ট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের প্রজেক্ট ডিরেক্টর ও চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্ল্যানিং এন্ড অ্যাডমিন) জাফর আলম এবং প্রজেক্টের জাপানি কনসালটেন্ট নিপ্পন কোয়েই-এর টিম লিডার হোতানি।

জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) অর্থায়নে মহেশখালীর মাতারবাড়ী ও ধলঘাট এলাকায় বন্দরটি নির্মিত হচ্ছে।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এসএম আবুল কালাম আজাদ বলেন, দেশের মোট বৈদেশিক বাণিজ্যের ৯২ ভাগ চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে সম্পন্ন হয়। যে গতিতে ব্যবসার প্রবৃদ্ধি বাড়ছে তাতে চট্টগ্রাম বন্দর তার সক্ষমতার শেষ পর্যায়ে এসে গেছে। তাই সরকার ২০১৪ সালে মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। গত ২৩ সেপ্টেম্বর পরামর্শক সংস্থার সাথে চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার পর আজ ১৬ নভেম্বর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই প্রকল্প উন্নয়নের কাজ শুরু হলো। এ বন্দরের কল্যাণে ঢাকা থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত যে অর্থনৈতিক বেল্ট গড়ে উঠছে- তা আরো বেগবান হবে।

বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্ল্যানিং এন্ড অ্যাডমিন) জাফর আলম বলেন, করোনার এই দুঃসময়ে অন্যান্য উন্নয়ন প্রকল্পে পরামর্শকরা কাজ না করে ফিরে গেছে। কিন্তু এই প্রকল্পে কনসালটেন্টরা ঝুঁকি নিয়েও কাজ করছেন। আমরা আশা করছি, ২০২৫ সালে নির্ধারিত সময়ের আরো ৬ মাস আগে বন্দরের কাজ শেষ হবে।

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরে চীন থেকে জাহাজ এসে পণ্য খালাস করতে যে সময় লাগে মাতারবাড়ী বন্দরে সেই সময় ৩ দিন কমে আসবে। চট্টগ্রাম বন্দরের চেয়ে দ্বিগুন ড্রাফটের জাহাজ ভিড়ার সক্ষমতা থাকায় এই বন্দরে ৮ থেকে ১০ হাজার কন্টেইনারবাহী জাহাজ ভিড়তে পারবে। এতে পণ্য পরিবহনের ব্যয় যেমন কমায় ব্যবসায়ীরা উপকৃত হবেন। প্রাথমিকভাবে ৮ লাখ কন্টেইনার হ্যান্ডলিং করার লক্ষ্যে নকশা করা হচ্ছে। পরে জেটি বাড়লে সক্ষমতা বাড়বে।

উপস্থিত সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে জাফর আলম বলেন, মাতারবাড়ী পোর্ট চট্টগ্রাম বন্দরের সীমার মধ্যে। তাই নতুন এ বন্দরটি চট্টগ্রাম বন্দরের অধীনে পরিচালিত হবে। একটি বন্দরের অধীনে অনেক টার্মিনাল বন্দর থাকতে পারে।

জাপানি পরামর্শক দলনেতা হোতানি বলেন, মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর উন্নয়ন প্রকল্পে প্রথম ধাপে ডিজাইন, সিভিল ওয়ার্ক হবে। দ্বিতীয় ধাপে হ্যান্ডলিং ইক্যুইপমেন্ট সংগ্রহ করা হবে। ভূমিকম্পের বিষয়টি মাথায় রেখে সর্বাধুনিক জাপানি প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে এ প্রকল্পে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিপ্পন কোয়েই এর পক্ষ থেকে প্রকল্পের যাবতীয় নকশা ব্যয় নির্ধারণ, টেন্ডার ডকুমেন্টস তৈরি এবং অবকাঠামোগত নির্মাণের বিষয়গুলো মনিটর ও তদারকি করা হবে। পরবর্তী সময়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ইক্যুইপমেন্ট সংগ্রহ থেকে শুরু করে বন্দর চালু করে দেওয়ার বিষয়টি সমন্বয় করবে।

বন্দর চালু হওয়ার এক বছর পর্যন্ত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগীতা দেবে। এজন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটিকে ২৩৪ কোটি টাকা দেওয়া হবে। আর ওরিয়েন্টাল কনসালটেন্ট গ্লোবাল কোম্পানি প্রকল্পের (বন্দর সংযোগ সড়ক অংশ) সড়ক ও মহাসড়ক বিভাগের কার্যক্রম-সংক্রান্ত পরামর্শ দেবে। এজন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠানটিকে ৪৬৬ কোটি টাকা দেওয়া হবে।

এসময় বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক, পরিচালক ট্রাফিক এনামুল করিম সহ বন্দর কর্তৃপক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং জাপানি পরামর্শক টিমের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: টিবিএস

এনএসজিপিপি নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা শুরু করেছে রাশিয়া ও পাকিস্তান

রাশিয়া ও পাকিস্তান সোমবার ইসলামাবাদে বহুল আলোচিত নর্থ সাউথ গ্যাস পাইপলাইন প্রজেক্ট (এনএসজিপিপি) নিয়ে তিনদিনের গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা শুরু করেছে। পাঁচ বছর বিলম্বের পর এই আলোচনা শুরু হলো। দুই দেশই এই প্রকল্পকে গুরুত্বের সাথে দেখছে এবং এটাকে কেন্দ্র করে কৌশলগত সম্পর্ক গড়ার পরিকল্পনা করছ, যে সম্পর্ক শুধু অর্থনৈতিক, জ্বালানি আর বাণিজ্য খাতেই সীমাবদ্ধ থাকবে না, বরং প্রতিরক্ষা খাতেও সেটা সম্প্রসারিত হবে।

যৌথ মহড়ায় অংশ নিতে রাশিয়ান সেনারা এরই মধ্যে পাকিস্তানে উপস্থিত হয়েছে। এর আগে রাশিয়া পাকিস্তানকে পাকিস্তান স্টিল মিলস (পিএসএম), এবং দেশের তেল ও গ্যাস খাতের সংস্থা – ওজিডিসিএল নির্মাণে সাহায্য করেছিল। পাকিস্তান সম্প্রতি রাশিয়া থেকে গমও আমদানি শুরু করেছে। এবার দুই দেশই প্রায় ২.২৫ বিলিয়ন ডলারের প্রকল্পে কাজ শুরুর আগের পূর্বপ্রস্তুতিগুলো চূড়ান্ত করে নিচ্ছে।

এনএসজিপিপি অনেক চড়াই-উৎরাইয়ের ভেতর দিয়ে গেছে এবং পাঁচ বছর দেরি হয়ে গেছে। কিন্তু মস্কো এখনও তাদের প্রতিশ্রুতির ব্যাপারে দায়বদ্ধ রয়েছে। ফলে বোঝা যাচ্ছে যে, পাকিস্তানের সাথে কৌশলগত সম্পর্ক তৈরিতে মস্কো কতটা আগ্রহী।

রাশিয়ার জ্বালানি ও প্রকল্প বাস্তবায়ন মন্ত্রণালয়ের বিশেষ প্রতিনিধি ডি এল কাপনিকের নেতৃত্বে রাশিয়ার একটি টেকনিক্যাল টিম ইসলামাবাদে পৌঁছেছে। অন্যদিকে পাকিস্তানি টিমের নেতৃত্ব দিবেন ইন্টার স্টেট গ্যাস কোম্পানির (আইএসজিএস) ম্যানেজিং ডিরেক্টর মিস সায়রা নাজিব।

১৬-১৮ নভেম্বরের এই আলোচনায় দুই দেশের টেকনিক্যাল টিম ইন্টার গভর্নমেন্ট এগ্রিমেন্ট (আইজিএ) সংশোধন করবে এবং আইএসজিএস ও রাশিয়ার নির্ধারিত প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ারহোল্ডার এগ্রিমেন্টের (এসএইচএ) নতুন কাঠামো নিয়ে আলোচনা করবে।

পাকিস্তান এরই মধ্যে রাশিয়ান পক্ষকে সুপ্রিম কোর্টের জিআইডিসি (গ্যাস অবকাঠামো উন্নয়ন কর) রায় সম্পর্কে জানিয়েছে, যে রায়ের ফলে সরকার এই প্রকল্পের জন্য পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ দিতে পারবে। জনগণের কাছ থেকে জিআইডিসির অধীনে ৩০৫ বিলিয়ন রুপি সংগ্রহ করা হয়েছে, যেটা অর্থ বিভাগের কাছে রয়েছে। অন্যদিকে সার, সিএনজি, বিদ্যুৎ খাত, এবং বাণিজ্যিক খাতের কিছু পক্ষের কাছ থেকে ৫১৭ বিলিয়ন রুপি সংগ্রহ করা এখনও বাকি রয়েছে।

নতুন প্রেক্ষাপটে ইসলামাবাদ প্রস্তাব দিয়েছে যে, পাকিস্তান এই প্রকল্পের ৫১ শতাংশ তারল্য শেয়ার রাখবে এবং তারাই নেতৃত্বের জায়গায় থাকবে। অন্যদিকে রাশিয়ার তারল্য শেয়ার থাকবে ৪৯ শতাংশ। ৫১ শতাংশ তারল্যের মধ্যে জমি অধিগ্রহণ ব্যায়, নিরাপত্তা ও গ্যাস কোম্পানিগুলো সেবা এগুলিও পাকিস্তানের অংশে পড়বে। ইপিসি (ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রকিউরমেন্ট ও কন্সট্রাকশান) প্রকল্প নিয়ে কিভাবে অগ্রসর হওয়া যায় সেটি নিয়েও সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। সূত্র: দ্য নিউজ