আল্লাহ নিজে আসলেও কিছু করতে পারবেন না: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী

0

নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জ জেলার হাওরের ডুবন্ত বাঁধ রক্ষা কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে শুক্রবার নেত্রকোনার সার্কিট হাউস মিলনায়তনে এক মতবিনিময় সভার পূর্বে সাংবাদিকদের সাথে কার্যক্রম নিয়ে কথা বলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক।

হাওরের বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের নামে প্রতিবছরই কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়ার পরেও তা সময় মতো বাস্তবায়ন করতে ব্যর্থ হয় পানি উন্নয়ন বোর্ড।

সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেন, স্থানীয় কৃষকদের সম্পৃক্ত করে পিআইসিগুলো গঠন করে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। পিআইসির কমিটিতে এখন ইউএনও, স্থানীয় রাজনৈতিক, জমিদাতাসহ সব সেক্টরের লোক রেখে সমন্বয় করে কমিটি গঠন করা হয়। এখন এতো সমন্বয়ের পরেও যদি ভালো কাজ না হয় তাহলে স্বয়ং আল্লাহ এসেও কিছু করতে পারবেন না। তারপরও আমরা কাজ করছি, চেষ্টা করছি মানুষ যাতে ভালো ভাবে ঘরে ফসল তুলতে পারে। এজন্যই আমার আসা।

জাহিদ ফারুক মতবিনিময় সভায় বলেছেন, এ বছর হাওর থেকে পানি নিষ্কাশনে কিছুটা সময় লেগেছে যে কারণেই নির্মাণ কাজ পিছিয়েছে। সময় মতই কাজ সম্পন্ন হবে বলেও জানান তিনি।

স্থানীয় সাংবাদিকরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নানা অনিয়ম দুর্নীতির কথা তুলে ধরলে সাংবাদিকদের প্রশ্ন এড়িয়ে গিয়ে সঠিক সাংবাদিকতা করার পরামর্শ দিয়ে প্রতিমন্ত্রী।

সাংবাদিকদের পরামর্শ দিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সবকিছু রেখে পানি উন্নয়ন বোর্ডের দোষ ত্রুটি খুঁজলে শুধু হবে না। সাংবাদিকদের এক জায়গার ছবি এনে আরেক জায়গায় লাগিয়ে দেয়ার উদাহরণ তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী বারবার সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে যান। সূত্রঃ স্টুডেন্ট জার্নাল বিডি

দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের মাঝে খুবই জনপ্রিয় মিজানুর রহমান আজহারী : ‍নুরুল হক নুর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুর বলেছেন, বর্তমান সময়ে দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের মাঝে খুবই জনপ্রিয় ড. মিজানুর রহমান আজহারী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিশেষ করে ইউটিউবে তার ওয়াজের ভিডিওগুলো যেভাবে ভিউ হয়, তাতে তার জনপ্রিয়তা অস্বীকার করার কোন ওয়ে নেই।

সম্প্রতি তাকে নিয়ে ধর্মপ্রতিমন্ত্রীর একটি বক্তব্যে আলোচনায় এসেছে। শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) রাতে নিজের ফেসবুক পেজে এক লাইভ ভিডিওতে এসব মন্তব্য করেন ভিপি নুরুল হক নুর। নুর বলেন, আমি মনে করি, আজহারীকে পছন্দ-অপছন্দ করা কোন বিষয় নয়, ধর্মপ্রাণ মানুষের কাছে উনার জনপ্রিয়তা তুঙ্গে।

গতানুতগতিক বক্তাদের বাইরে গিয়ে তিনি সাধারণত ওয়াজ করে থাকেন। সমকালীন প্রসঙ্গের সাথে বিজ্ঞানভিত্তিক আলোচনা এবং বিশ্লেষণ করেন তিনি। এজন্য তিনি এতো জনপ্রিয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক বার্তায় এ বছরের মার্চ পর্যন্ত সব তাফসির কর্মসূচি স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছেন ড. মিজানুর রহমান আজহারী। এ সময়ে গবেষণার কাজে তিনি মালয়েশিয়ায় চলে যাচ্ছেন বলেও উল্লেখ করেন ওই বার্তায়।

সুত্র: দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস

বিয়েতে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন চাইলেন হবু স্ত্রীর

মুসলিম সমাজে বিয়েতে স্ত্রীকে দেনমোহর দেওয়া বাধ্যতামূলক। দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে যা খুশি ‌তাই চাইতে পারেন হবু স্ত্রী। সাধারণত হবু স্বামীর কাছে সোনা দানার গয়না কিংবা টাকা পয়সা দাবি করে থাকেন হবু স্ত্রী’রা। কিন্তু প্রচলিত প্রথা থেকে বেরিয়ে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন, বাইবেল, গীতা, সংবিধান সহ ৮০টি বই চাইলেন হবু স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ১০০ শতাংশ শিক্ষিত রাজ্য হিসেবে পরিচিত কেরলে। এমন ঘটনা কেরলের বুকে ইতিহাস হয়ে রইল।

জানা গেছে ওই কন্যার নাম আজনা নিজাম। আজনা তাঁর স্বামীর কাছে ৮০টি বই দাবি করেন। ২৯ ডিসেম্বর তাঁদের বিয়ে হয়। কিন্তু সেদিন দেখা গেল আজনা ৮০টি বই দাবি করেন, কিন্তু তাঁর স্বামী তাঁকে মোট ১০০টি বই উপহার দিলেন।

আর সেই ছবি ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই ছবিতে দেখা যায় আজনা তাঁর বিছানায় বসে বসে বই পড়ছে আর সামনে অসংখ্য বই। রয়েছে কোরান, বাইবেল, গীতা, সংবিধান আরও কত কী!‌ বাধা ধরা নিয়মের বাইরে গিয়ে আজনার এই দাবি অন্য মেয়েদেরকে পড়াশোনা করার ক্ষেত্রে উদবুদ্ধ করবে।

বিয়েতে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন চাইলেন হবু স্ত্রীর

মুসলিম সমাজে বিয়েতে স্ত্রীকে দেনমোহর দেওয়া বাধ্যতামূলক। দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে যা খুশি ‌তাই চাইতে পারেন হবু স্ত্রী। সাধারণত হবু স্বামীর কাছে সোনা দানার গয়না কিংবা টাকা পয়সা দাবি করে থাকেন হবু স্ত্রী’রা। কিন্তু প্রচলিত প্রথা থেকে বেরিয়ে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন, বাইবেল, গীতা, সংবিধান সহ ৮০টি বই চাইলেন হবু স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ১০০ শতাংশ শিক্ষিত রাজ্য হিসেবে পরিচিত কেরলে। এমন ঘটনা কেরলের বুকে ইতিহাস হয়ে রইল।

জানা গেছে ওই কন্যার নাম আজনা নিজাম। আজনা তাঁর স্বামীর কাছে ৮০টি বই দাবি করেন। ২৯ ডিসেম্বর তাঁদের বিয়ে হয়। কিন্তু সেদিন দেখা গেল আজনা ৮০টি বই দাবি করেন, কিন্তু তাঁর স্বামী তাঁকে মোট ১০০টি বই উপহার দিলেন।

আর সেই ছবি ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই ছবিতে দেখা যায় আজনা তাঁর বিছানায় বসে বসে বই পড়ছে আর সামনে অসংখ্য বই। রয়েছে কোরান, বাইবেল, গীতা, সংবিধান আরও কত কী!‌ বাধা ধরা নিয়মের বাইরে গিয়ে আজনার এই দাবি অন্য মেয়েদেরকে পড়াশোনা করার ক্ষেত্রে উদবুদ্ধ করবে।

বিয়েতে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন চাইলেন হবু স্ত্রীর

মুসলিম সমাজে বিয়েতে স্ত্রীকে দেনমোহর দেওয়া বাধ্যতামূলক। দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে যা খুশি ‌তাই চাইতে পারেন হবু স্ত্রী। সাধারণত হবু স্বামীর কাছে সোনা দানার গয়না কিংবা টাকা পয়সা দাবি করে থাকেন হবু স্ত্রী’রা। কিন্তু প্রচলিত প্রথা থেকে বেরিয়ে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন, বাইবেল, গীতা, সংবিধান সহ ৮০টি বই চাইলেন হবু স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ১০০ শতাংশ শিক্ষিত রাজ্য হিসেবে পরিচিত কেরলে। এমন ঘটনা কেরলের বুকে ইতিহাস হয়ে রইল।

জানা গেছে ওই কন্যার নাম আজনা নিজাম। আজনা তাঁর স্বামীর কাছে ৮০টি বই দাবি করেন। ২৯ ডিসেম্বর তাঁদের বিয়ে হয়। কিন্তু সেদিন দেখা গেল আজনা ৮০টি বই দাবি করেন, কিন্তু তাঁর স্বামী তাঁকে মোট ১০০টি বই উপহার দিলেন।

আর সেই ছবি ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই ছবিতে দেখা যায় আজনা তাঁর বিছানায় বসে বসে বই পড়ছে আর সামনে অসংখ্য বই। রয়েছে কোরান, বাইবেল, গীতা, সংবিধান আরও কত কী!‌ বাধা ধরা নিয়মের বাইরে গিয়ে আজনার এই দাবি অন্য মেয়েদেরকে পড়াশোনা করার ক্ষেত্রে উদবুদ্ধ করবে।

বিয়েতে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন চাইলেন হবু স্ত্রীর

মুসলিম সমাজে বিয়েতে স্ত্রীকে দেনমোহর দেওয়া বাধ্যতামূলক। দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে যা খুশি ‌তাই চাইতে পারেন হবু স্ত্রী। সাধারণত হবু স্বামীর কাছে সোনা দানার গয়না কিংবা টাকা পয়সা দাবি করে থাকেন হবু স্ত্রী’রা। কিন্তু প্রচলিত প্রথা থেকে বেরিয়ে দেনমোহর হিসেবে স্বামীর কাছে কোরআন, বাইবেল, গীতা, সংবিধান সহ ৮০টি বই চাইলেন হবু স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ১০০ শতাংশ শিক্ষিত রাজ্য হিসেবে পরিচিত কেরলে। এমন ঘটনা কেরলের বুকে ইতিহাস হয়ে রইল।

জানা গেছে ওই কন্যার নাম আজনা নিজাম। আজনা তাঁর স্বামীর কাছে ৮০টি বই দাবি করেন। ২৯ ডিসেম্বর তাঁদের বিয়ে হয়। কিন্তু সেদিন দেখা গেল আজনা ৮০টি বই দাবি করেন, কিন্তু তাঁর স্বামী তাঁকে মোট ১০০টি বই উপহার দিলেন।

আর সেই ছবি ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই ছবিতে দেখা যায় আজনা তাঁর বিছানায় বসে বসে বই পড়ছে আর সামনে অসংখ্য বই। রয়েছে কোরান, বাইবেল, গীতা, সংবিধান আরও কত কী!‌ বাধা ধরা নিয়মের বাইরে গিয়ে আজনার এই দাবি অন্য মেয়েদেরকে পড়াশোনা করার ক্ষেত্রে উদবুদ্ধ করবে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.