ইসরাইলের সঙ্গে বন্ধুত্ব আমাদের নিরাপত্তা দেবে : বাহরাইনের দাবি

বাহরাইনের রাজধানী মানামায় তিন দিনের ১৬তম মানামা সম্মেলন শেষ হল। নিরাপত্তা বিষয়ক আন্তর্জাতিক বেশ

কয়েকটি সংস্থার প্রতিনিধি এবং কয়েকটি আরব দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের উপস্থিতিতে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

বাহরাইনে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনের আরেকটি লক্ষ্য ছিল দখলদার ইসরাইলের সঙ্গে আপোশ প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আরব দেশগুলোর উদ্যোগের প্রতি সমর্থন জানানো।

বাহরাইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল লতিফ আল যিয়ানি আবারো আগ্রাসী ইসরাইলের সঙ্গে বন্ধুত্ব স্থাপনকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর নিরাপত্তার জন্য কল্যাণকর বলে মন্তব্য করেছেন।

তিনি এও দাবি করেন, মানামা ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংকট নিরসনের চেষ্টা করছে।

এমন সময় তিনি এসব দাবি করলেন যখন সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক কম্পর্ক স্থাপনের পর ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলিদের বর্বর আগ্রাসন ও সহিংসতার মাত্রা বহুগুণে বেড়েছে।

ইসরাইলি অত্যাচারের ফল হিসেবে গত সপ্তাহে এক ফিলিস্তিনি শিশু শহীদ হয়েছে এবং যন্ত্রাংশের অভাবে গাজার একটি গুরুত্বপূর্ণ গবেষণাগার বন্ধ করে দিতে হয়েছে।

মানামা সম্মেলনের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে, এ সম্মেলনে এটা স্পষ্ট হয়েছে যে, পারস্য উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ বা পিজিসিসি’র অভ্যন্তরীণ মতবিরোধ নিরসনের জন্য মূলত এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলেও ওই মতবিরোধ এখনো অব্যাহত রয়েছে।

ওমানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বদর বিন হামদ বিন হামুদ আল বু সাঈদি কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপকারীদের চরম বিদ্বেষের কথা উল্লেখ করে বলেছেন, আমেরিকার নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইরানের সঙ্গে সাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসবেন বলে আমরা আশা করি। কারণ ওই সমঝোতা ছিল এ অঞ্চলে শান্তির জন্য অনেক বড় সাফল্য।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, এসব পাল্টাপাল্টি বক্তব্য থেকে বোঝা যায় বিভিন্ন ইস্যুতে আরব দেশগুলো ভিন্ন ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করে এবং মানামা সম্মেলনেও সৌদি আরব একক আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে।

মোটকথা মানামা সম্মেলনে নিরাপত্তা ও রাজনৈতিক শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে কোনো সাফল্য আসেনি।